ঢাকা ১২:০২ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ২৯ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

২১ বছরে পা রাখল বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক মুরগি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০৯:১১:২২ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২ সেপ্টেম্বর ২০২৩
  • / ৪৫১ বার পড়া হয়েছে
৭১ নিউজ বিডির সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

একুশ বছরে পা রাখল বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক মুরগি পিনাট। এ বছরই বিশ্বের সবচেয়ে বেশি বয়সের মুরগি হিসেবে গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে এটির নাম উঠেছিল। মার্কিন সংবাদমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্টের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, গত মে মাসে মার্কিন যুক্তরাজ্যের মিশিগানের মুরগি পিনাটের ২১তম জন্মদিন উদযাপন করা হয়। ২০০২ সালের বসন্তে জন্ম হয় মুরগিটির। তবে মা, ভাই-বোনদের সঙ্গে বেড়ে উঠতে পারেনি সে। পিনাটের জন্মের আগেই তার ডিম ফেলে রেখে অন্য বাচ্চাদের নিয়ে তার মা চলে যায়।

পিনাটের মায়ের ফেলে যাওয়া ডিমটিকে নষ্ট ভেবে পানিতে ফেলতে যাচ্ছিলেন তার মালিক মার্সি ডারউইন । তখন খেয়াল করলেন যে পিনাট তখন ডিম থেকে বের হচ্ছে। সেই থেকেই আয় প্রায় ২১ বছর মার্সির সঙ্গে আছে পিনাট।

পিনাটের অনেক ছেলে-মেয়ে, নাতি-নাতনি হয়েছে। তবে এখন সে থাকছে তার ১৫ বছর বসয়ী মেয়ে মিলির সঙ্গে একই ঘরে। পিনাট ৮ বছর পর্যন্ত ডিম দিয়েছে। সাধারণ অন্য মুরগির তুলনায় তা প্রায় বছরখানিক বেশি। এমনকি যেখানে সাধারণত একটি মুরগি ৫ থেকে ১০ বছর বাঁচে, সেখানে পিনাটের জীবন দিগুণ দীর্ঘ।

মার্সি তার মুরগিগুলোর এত দীর্ঘ জীবন বাঁচার রহস্য জানিয়েছেন। তিনি বলেন, সবসময় তাজা খাবার এদের সুস্থ রাখে। এছাড়া পর্যাপ্ত ব্যায়াম অর্থাৎ হাঁটা চলা করাতে হবে। মার্সি পিনাটের খাবারের তালিকায় রাখেন, তাজা সবজি, ফল, দই, ভিডামিন ডি ট্যাবলেট, পরিষ্কার পানি এবং কৃমি মোকাবেলায় আপেল সিডার ভিনেগার যোগ করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

২১ বছরে পা রাখল বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক মুরগি

আপডেট সময় : ০৯:১১:২২ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২ সেপ্টেম্বর ২০২৩

একুশ বছরে পা রাখল বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক মুরগি পিনাট। এ বছরই বিশ্বের সবচেয়ে বেশি বয়সের মুরগি হিসেবে গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে এটির নাম উঠেছিল। মার্কিন সংবাদমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্টের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, গত মে মাসে মার্কিন যুক্তরাজ্যের মিশিগানের মুরগি পিনাটের ২১তম জন্মদিন উদযাপন করা হয়। ২০০২ সালের বসন্তে জন্ম হয় মুরগিটির। তবে মা, ভাই-বোনদের সঙ্গে বেড়ে উঠতে পারেনি সে। পিনাটের জন্মের আগেই তার ডিম ফেলে রেখে অন্য বাচ্চাদের নিয়ে তার মা চলে যায়।

পিনাটের মায়ের ফেলে যাওয়া ডিমটিকে নষ্ট ভেবে পানিতে ফেলতে যাচ্ছিলেন তার মালিক মার্সি ডারউইন । তখন খেয়াল করলেন যে পিনাট তখন ডিম থেকে বের হচ্ছে। সেই থেকেই আয় প্রায় ২১ বছর মার্সির সঙ্গে আছে পিনাট।

পিনাটের অনেক ছেলে-মেয়ে, নাতি-নাতনি হয়েছে। তবে এখন সে থাকছে তার ১৫ বছর বসয়ী মেয়ে মিলির সঙ্গে একই ঘরে। পিনাট ৮ বছর পর্যন্ত ডিম দিয়েছে। সাধারণ অন্য মুরগির তুলনায় তা প্রায় বছরখানিক বেশি। এমনকি যেখানে সাধারণত একটি মুরগি ৫ থেকে ১০ বছর বাঁচে, সেখানে পিনাটের জীবন দিগুণ দীর্ঘ।

মার্সি তার মুরগিগুলোর এত দীর্ঘ জীবন বাঁচার রহস্য জানিয়েছেন। তিনি বলেন, সবসময় তাজা খাবার এদের সুস্থ রাখে। এছাড়া পর্যাপ্ত ব্যায়াম অর্থাৎ হাঁটা চলা করাতে হবে। মার্সি পিনাটের খাবারের তালিকায় রাখেন, তাজা সবজি, ফল, দই, ভিডামিন ডি ট্যাবলেট, পরিষ্কার পানি এবং কৃমি মোকাবেলায় আপেল সিডার ভিনেগার যোগ করেন।