ঢাকা ০৭:৫০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

শান্তি-সমৃদ্ধির জন্য কাজ করবে আসিয়ান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০৯:৫৪:০১ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩
  • / ৪৫৫ বার পড়া হয়েছে
৭১ নিউজ বিডির সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

বিশ্বের কোনো শক্তির দিকে ঝুঁকবে না দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া অঞ্চলের দশ দেশের আঞ্চলিক জোট- আসিয়ান। এই অঞ্চলের শান্তি ও সমৃদ্ধির জন্য এক হয়ে কাজ করবে এই জোট।

মঙ্গলবার ইন্দোনেশিয়ার রাজধানী জাকার্তায় আসিয়ান শীর্ষ সম্মেলনের উদ্বোধন করে এ কথা জানান ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট ও জোটের বর্তমান সভাপতি জোকো উইদোদো। এতে যোগ দিয়েছেন বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ শাহাবুদ্দিন। সেখানে তিনি আঞ্চলিক ঐক্য শক্তিশালী করতে সমাপনী ভাষণ দেবেন।

বৈশ্বিক রাজনীতির নানা অস্থিরতার মধ্যে ইন্দোনেশিয়ার জাকার্তায় শুরু হলো দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দশ দেশের রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক জোট আসিয়ানের ৪৩তম শীর্ষ সম্মেলন। মঙ্গলবার স্থানীয় সময় সকালে রাজধানীর জাকার্তা কনভেনশন সেন্টারে এই সম্মেলনে যোগ দেন বাংলাদেশ, মালয়েশিয়া, ফিলিপাইন, সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ড, ব্রুনেই, কম্বোডিয়া, লাওস, ভিয়েতনাম, মিয়ানমারের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানরা। বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ শাহাবুদ্দিন উদ্বোধনী অধিবেশনে অতিথিদের সঙ্গে মঞ্চে আসন নেন।

আসিয়ান শীর্ষ সম্মেলনের উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন সামিট চেয়ার ও ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো। তিনি জানান, অস্থিতিশীল ভূরাজনৈতিক পরিস্থিতিতে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর ভবিষ্যত চ্যালেঞ্জের মুখে পড়ছে। তবে পরিস্থিতি যাই হোক না কেন আঞ্চলিক শান্তি ও সমৃদ্ধি নিশ্চিত করতে আসিয়ানভুক্ত দেশগুলো একসাথে কাজ করতে সম্মত হয়েছে বলে জানান প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো। আসিয়ানকে পারস্পরিক ধ্বংসাত্মক প্রতিদ্বন্দ্বিতার ক্ষেত্র বানানো উচিৎ নয় বলেও জানান তিনি। ভবিষ্যতে যে কঠিন চ্যালেঞ্জ সামনে আসবে তা আমরা একসাথে মোকাবেলা করব।

তিন দিনের সম্মেলনে এই অঞ্চলের রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক নানা বিষয় নিয়ে আলোচনা করবেন রাষ্ট্রনেতারা। এতে মিয়ানমারে চলমান সংঘাত, দক্ষিণ চীন সাগরে আচরণবিধি, এ অঞ্চলের অর্থনীতি, আন্তর্জাতিক অপরাধ এবং অন্যান্য বিষয় গুরুত্ব পাবে। সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্র, চীন, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, অস্ট্রেলিয়াসহ বেশ কয়েকটি দেশের প্রতিনিধি পর্যবেক্ষক হিসেবে অংশ নেবে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রতিনিধি হিসেবে আসবেন ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস। চীনের প্রধানমন্ত্রী লি কিয়াং যোগ দেবেন সম্মেলনের শেষদিনে।

ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট এবং ২০২৩ সালের জন্য আসিয়ানের সভাপতি জোকো উইডোডোর আমন্ত্রণে আসিয়ান শীর্ষ সম্মেলন এবং জাকার্তা কনভেনশন সেন্টারে ইস্ট এশিয়া শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিয়েছেন বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ শাহাবুদ্দিন। সম্মেলনের সমাপনী ভাষণে তিনি আঞ্চলিক ঐক্য শক্তিশালী করার ওপর জোর দেবেন। এছাড়াও তিনি ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইডোডো এবং থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া এবং পূর্ব তিমুরের রাষ্ট্রপ্রধানাদের সঙ্গে আলাদা বৈঠক করবেন।

এরআগে সোমবার রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ সাহাবুদ্দিন ইন্দোনেশিয়ার রাজধানী জাকার্তায় পৌছালে তাকে লাল গালিচা অভ্যর্থনা দেয়া হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

শান্তি-সমৃদ্ধির জন্য কাজ করবে আসিয়ান

আপডেট সময় : ০৯:৫৪:০১ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩

বিশ্বের কোনো শক্তির দিকে ঝুঁকবে না দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া অঞ্চলের দশ দেশের আঞ্চলিক জোট- আসিয়ান। এই অঞ্চলের শান্তি ও সমৃদ্ধির জন্য এক হয়ে কাজ করবে এই জোট।

মঙ্গলবার ইন্দোনেশিয়ার রাজধানী জাকার্তায় আসিয়ান শীর্ষ সম্মেলনের উদ্বোধন করে এ কথা জানান ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট ও জোটের বর্তমান সভাপতি জোকো উইদোদো। এতে যোগ দিয়েছেন বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ শাহাবুদ্দিন। সেখানে তিনি আঞ্চলিক ঐক্য শক্তিশালী করতে সমাপনী ভাষণ দেবেন।

বৈশ্বিক রাজনীতির নানা অস্থিরতার মধ্যে ইন্দোনেশিয়ার জাকার্তায় শুরু হলো দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দশ দেশের রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক জোট আসিয়ানের ৪৩তম শীর্ষ সম্মেলন। মঙ্গলবার স্থানীয় সময় সকালে রাজধানীর জাকার্তা কনভেনশন সেন্টারে এই সম্মেলনে যোগ দেন বাংলাদেশ, মালয়েশিয়া, ফিলিপাইন, সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ড, ব্রুনেই, কম্বোডিয়া, লাওস, ভিয়েতনাম, মিয়ানমারের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানরা। বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ শাহাবুদ্দিন উদ্বোধনী অধিবেশনে অতিথিদের সঙ্গে মঞ্চে আসন নেন।

আসিয়ান শীর্ষ সম্মেলনের উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন সামিট চেয়ার ও ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো। তিনি জানান, অস্থিতিশীল ভূরাজনৈতিক পরিস্থিতিতে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর ভবিষ্যত চ্যালেঞ্জের মুখে পড়ছে। তবে পরিস্থিতি যাই হোক না কেন আঞ্চলিক শান্তি ও সমৃদ্ধি নিশ্চিত করতে আসিয়ানভুক্ত দেশগুলো একসাথে কাজ করতে সম্মত হয়েছে বলে জানান প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো। আসিয়ানকে পারস্পরিক ধ্বংসাত্মক প্রতিদ্বন্দ্বিতার ক্ষেত্র বানানো উচিৎ নয় বলেও জানান তিনি। ভবিষ্যতে যে কঠিন চ্যালেঞ্জ সামনে আসবে তা আমরা একসাথে মোকাবেলা করব।

তিন দিনের সম্মেলনে এই অঞ্চলের রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক নানা বিষয় নিয়ে আলোচনা করবেন রাষ্ট্রনেতারা। এতে মিয়ানমারে চলমান সংঘাত, দক্ষিণ চীন সাগরে আচরণবিধি, এ অঞ্চলের অর্থনীতি, আন্তর্জাতিক অপরাধ এবং অন্যান্য বিষয় গুরুত্ব পাবে। সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্র, চীন, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, অস্ট্রেলিয়াসহ বেশ কয়েকটি দেশের প্রতিনিধি পর্যবেক্ষক হিসেবে অংশ নেবে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রতিনিধি হিসেবে আসবেন ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস। চীনের প্রধানমন্ত্রী লি কিয়াং যোগ দেবেন সম্মেলনের শেষদিনে।

ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট এবং ২০২৩ সালের জন্য আসিয়ানের সভাপতি জোকো উইডোডোর আমন্ত্রণে আসিয়ান শীর্ষ সম্মেলন এবং জাকার্তা কনভেনশন সেন্টারে ইস্ট এশিয়া শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিয়েছেন বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ শাহাবুদ্দিন। সম্মেলনের সমাপনী ভাষণে তিনি আঞ্চলিক ঐক্য শক্তিশালী করার ওপর জোর দেবেন। এছাড়াও তিনি ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইডোডো এবং থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া এবং পূর্ব তিমুরের রাষ্ট্রপ্রধানাদের সঙ্গে আলাদা বৈঠক করবেন।

এরআগে সোমবার রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ সাহাবুদ্দিন ইন্দোনেশিয়ার রাজধানী জাকার্তায় পৌছালে তাকে লাল গালিচা অভ্যর্থনা দেয়া হয়।