ঢাকা ১১:৪৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

বন্ধ হয়ে যাবে কি বরিশাল বিমানবন্দর!

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় : ০৫:৪৫:৩২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩
  • / ৪৮১ বার পড়া হয়েছে
৭১ নিউজ বিডির সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

দেশের সবচেয়ে বড় অবকাঠামো পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর ২০২২ সালের আগস্টে ঢাকা-বরিশাল রুটে ফ্লাইট পরিচালনা বন্ধ করে দেয় বেসরকারি এয়ারলাইন্স নভো এয়ার। সে সময় এয়ারলাইন্সটির কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিল, যাত্রী কমে যাওয়ার কারণেই এ উদ্যোগ নিয়েছে তারা। এবার একই পথে হাঁটছে আরেক বেসরকারি এয়ারলাইন্স ইউএস বাংলা। আর যাত্রী কমে যাওয়ায় রুটটিতে ফ্লাইট সংখ্যা অর্ধেকে নামিয়ে এনেছে রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। ট্রাভেল এজেন্সিগুলোর দাবি, পর্যাপ্ত যাত্রী পাওয়ার পরও এ ধরনের সিদ্ধান্ত অযৌক্তিক।

পদ্মা সেতু চালুর পর থেকেই আকাশপথে যাত্রী কমেছে ঢাকা-বরিশাল রুটে। বছর খানেক আগেও বরিশাল বিমানবন্দরে দিনে ১১টি ফ্লাইট ওঠানামা করেছে। এরমধ্যে বিমানের ফ্লাইট চলেছে সপ্তাহে ৬ দিন, আর প্রতিদিন চলাচল করেছে ইউএস বাংলার ফ্লাইট।

আকাশ থেকে শস্যক্ষেতে কীটনাশক ছিটাতে ১৯৬৩ সালে বরিশালের বাবুগঞ্জের রহমতপুর ইউনিয়নে নির্মাণ করা হয় প্রায় ২ হাজার ফুটের রানওয়ে। সে সময় এটিকে প্ল্যান্ট প্রোটেকশন বন্দর হিসেবে ব্যবহার করা হতো।

১৯৮৫ সালে এই রানওয়েটিকে বিমানবন্দরে রূপ দেয়া হয়, তবে সে সময় এখানে বাণিজ্যিক উড়োজাহাজ চলাচল শুরু হয়নি। ১৯৯৫ সালের ১৭ জুলাই বেসরকারি এয়ারলাইনস অ্যারো বেঙ্গলের ঢাকা-বরিশাল রুটে প্রথম ফ্লাইট পরিচালনার মাধ্যমে বিমানবন্দরটির বাণিজ্যিক যাত্রা শুরু হয়। ওই বছরেরই নভেম্বর মাসে বিমানবন্দরটিতে ফ্লাইট চালু করে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স।

শুরু থেকেই এ পথে যাত্রীর খরা ছিল। ২০০৬ সালে যাত্রীর অভাবে বিমানবন্দরটিতে বাণিজ্যিক ফ্লাইট চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ৯ বছর পর ২০১৫ সালের ৯ এপ্রিল আবার এই বিমানবন্দরে ফ্লাইট শুরু হয়।

১৬০ দশমিক ৫ একর জমির ওপর প্রতিষ্ঠিত বিমানবন্দরটির রানওয়ের দৈর্ঘ্য ৬ হাজার ফুট আর প্রস্থ ১০০ ফুট।

বরিশালে ফ্লাইট পরিচালনা প্রসঙ্গে বিমানের বাণিজ্যিক সহকারী সানজিদা শারমিন বলেন, ‘যখন পদ্মা সেতুটা হয়ে গেলো। তখন যাত্রীরা দেখা গেল যে খুব সহযেই তারা মুভ করতে পারছে। সড়ক পথেই যাওয়া আসা করতে পারছে। তখন থেকেই ধীরে ধীরে যাত্রী করে গেল। এখন সপ্তাগে তিনদিন করে আমাদের ফ্লাইট পরিচালনা করা হচ্ছে।’

বরিশালের হলি-ডে ট্যুর এন্ড ট্রাভেলসের চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান বাসার বলেন, ‘একটা ফ্লাইট তার কস্ট বেয়ার করতে বা সাসটেইন করতে ৩০ থেকে ৪০ ভাগ যাত্রী প্রয়োজন। সেখানে ৮০ ভাগ বা ৯০ ভাগ যাত্রী হওয়ার পরেও ফ্লাইট বাতিল করা হচ্ছে। এটার আসলে কী উদ্দেশ্য আমি জানি না।’

আকাশপথে যোগাযোগের গুরুত্ব বিবেচনায় বরিশালে ফ্লাইট চালু রাখতে উদ্যোগের কথা জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক শহিদুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘আকাশপথে যদি যাত্রীর চাহিদা থাকে এবং সে অনুযায়ী এখানে যারা ফ্লাইট পরিচালনা করেন সে বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে তাদের সাথে আমরা কথা বলবো।’

গত কয়েক বছরে উড়োজাহাজের জ্বালানি জেট ফুয়েল বা এভিয়েশন ফুয়েলের দাম বেড়েছে দ্বিগুণেরও বেশি। এর প্রভাব পড়েছে ভাড়ায়। অতিরিক্ত খরচের কারণে আগে যারা সময় বাঁচাতে আকাশপথ বেছে নিতেন, তাদের অনেকে অন্য মাধ্যমগুলোতে ফিরে যাচ্ছেন। এতে আকাশপথে যাত্রীর সংখ্যায় প্রতি বছর যে প্রবৃদ্ধি হতো, তা হোঁচট খেয়েছে।

আজ বন্ধ হচ্ছে ইউএস বাংলার ফ্লাইট
আজ বৃহস্পতিবার থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে এই আকাশপথে বিমান ওড়া বন্ধ হচ্ছে ইউএস বাংলার বিমান বলে জানান সংশ্লিষ্টরা। যাত্রী সংকটের কারণে এক বছর আগে ঢাকা-বরিশাল রুটে বন্ধ হয়েছে নভো এয়ার। সেই একই কারণে আজ থেকে বন্ধ হচ্ছে ইউএস বাংলার ফ্লাইটও। এজেন্সিগুলো বলছে, পর্যাপ্ত যাত্রী পাওয়ার পরও এ ধরনের সিদ্ধান্ত অযৌক্তিক।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে কোন মন্তব্য করেননি ইউএস বাংলা কর্তৃপক্ষ। নাম প্রকাশ না করার শর্তে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, ধারণ ক্ষমতার পুরো যাত্রী পাওয়ার পরও ঢাকা-বরিশাল রুটে ফ্লাইট না চালানো রহস্যজনক। উড়োজাহাজ ও যাত্রী সংকটের কথা জানিয়ে এর আগে গত বছরে নভোএয়ারের চলাচল বন্ধ হয়। একই অজুহাত এবার ইউএস-বাংলারও।

এ পথের পর্যবেক্ষকরা জানান, ঢাকা-বরিশাল দেশের অন্য যে কোনো উড়াল পথের চেয়ে লাভজনক। মাত্র ৬১ অ্যারোনটিক্যাল মাইলের এই দূরত্বটুকু পার করতে সাড়ে ৩ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত ভাড়া নেয় বিমান সংস্থাগুলো। এরপরও বিমান চলাচল বন্ধ হয়ে গেলে ভোগান্তির শেষ থাকবে না তাদের।

এদিকে জরুরি প্রয়োজনের জন্য হলেও এই রুটে উড়োজাহাজ চালু রাখার দাবি যাত্রীদের। আর ট্যুরিস্ট ও ট্রাভেল এজেন্সিগুলো বলছে, যথেষ্ট যাত্রী পাওয়ার পরও ফ্লাইট কমানো বা বন্ধের যৌক্তিকতা নেই।

নিউজটি শেয়ার করুন

বন্ধ হয়ে যাবে কি বরিশাল বিমানবন্দর!

আপডেট সময় : ০৫:৪৫:৩২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩

দেশের সবচেয়ে বড় অবকাঠামো পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর ২০২২ সালের আগস্টে ঢাকা-বরিশাল রুটে ফ্লাইট পরিচালনা বন্ধ করে দেয় বেসরকারি এয়ারলাইন্স নভো এয়ার। সে সময় এয়ারলাইন্সটির কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিল, যাত্রী কমে যাওয়ার কারণেই এ উদ্যোগ নিয়েছে তারা। এবার একই পথে হাঁটছে আরেক বেসরকারি এয়ারলাইন্স ইউএস বাংলা। আর যাত্রী কমে যাওয়ায় রুটটিতে ফ্লাইট সংখ্যা অর্ধেকে নামিয়ে এনেছে রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। ট্রাভেল এজেন্সিগুলোর দাবি, পর্যাপ্ত যাত্রী পাওয়ার পরও এ ধরনের সিদ্ধান্ত অযৌক্তিক।

পদ্মা সেতু চালুর পর থেকেই আকাশপথে যাত্রী কমেছে ঢাকা-বরিশাল রুটে। বছর খানেক আগেও বরিশাল বিমানবন্দরে দিনে ১১টি ফ্লাইট ওঠানামা করেছে। এরমধ্যে বিমানের ফ্লাইট চলেছে সপ্তাহে ৬ দিন, আর প্রতিদিন চলাচল করেছে ইউএস বাংলার ফ্লাইট।

আকাশ থেকে শস্যক্ষেতে কীটনাশক ছিটাতে ১৯৬৩ সালে বরিশালের বাবুগঞ্জের রহমতপুর ইউনিয়নে নির্মাণ করা হয় প্রায় ২ হাজার ফুটের রানওয়ে। সে সময় এটিকে প্ল্যান্ট প্রোটেকশন বন্দর হিসেবে ব্যবহার করা হতো।

১৯৮৫ সালে এই রানওয়েটিকে বিমানবন্দরে রূপ দেয়া হয়, তবে সে সময় এখানে বাণিজ্যিক উড়োজাহাজ চলাচল শুরু হয়নি। ১৯৯৫ সালের ১৭ জুলাই বেসরকারি এয়ারলাইনস অ্যারো বেঙ্গলের ঢাকা-বরিশাল রুটে প্রথম ফ্লাইট পরিচালনার মাধ্যমে বিমানবন্দরটির বাণিজ্যিক যাত্রা শুরু হয়। ওই বছরেরই নভেম্বর মাসে বিমানবন্দরটিতে ফ্লাইট চালু করে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স।

শুরু থেকেই এ পথে যাত্রীর খরা ছিল। ২০০৬ সালে যাত্রীর অভাবে বিমানবন্দরটিতে বাণিজ্যিক ফ্লাইট চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ৯ বছর পর ২০১৫ সালের ৯ এপ্রিল আবার এই বিমানবন্দরে ফ্লাইট শুরু হয়।

১৬০ দশমিক ৫ একর জমির ওপর প্রতিষ্ঠিত বিমানবন্দরটির রানওয়ের দৈর্ঘ্য ৬ হাজার ফুট আর প্রস্থ ১০০ ফুট।

বরিশালে ফ্লাইট পরিচালনা প্রসঙ্গে বিমানের বাণিজ্যিক সহকারী সানজিদা শারমিন বলেন, ‘যখন পদ্মা সেতুটা হয়ে গেলো। তখন যাত্রীরা দেখা গেল যে খুব সহযেই তারা মুভ করতে পারছে। সড়ক পথেই যাওয়া আসা করতে পারছে। তখন থেকেই ধীরে ধীরে যাত্রী করে গেল। এখন সপ্তাগে তিনদিন করে আমাদের ফ্লাইট পরিচালনা করা হচ্ছে।’

বরিশালের হলি-ডে ট্যুর এন্ড ট্রাভেলসের চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান বাসার বলেন, ‘একটা ফ্লাইট তার কস্ট বেয়ার করতে বা সাসটেইন করতে ৩০ থেকে ৪০ ভাগ যাত্রী প্রয়োজন। সেখানে ৮০ ভাগ বা ৯০ ভাগ যাত্রী হওয়ার পরেও ফ্লাইট বাতিল করা হচ্ছে। এটার আসলে কী উদ্দেশ্য আমি জানি না।’

আকাশপথে যোগাযোগের গুরুত্ব বিবেচনায় বরিশালে ফ্লাইট চালু রাখতে উদ্যোগের কথা জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক শহিদুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘আকাশপথে যদি যাত্রীর চাহিদা থাকে এবং সে অনুযায়ী এখানে যারা ফ্লাইট পরিচালনা করেন সে বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে তাদের সাথে আমরা কথা বলবো।’

গত কয়েক বছরে উড়োজাহাজের জ্বালানি জেট ফুয়েল বা এভিয়েশন ফুয়েলের দাম বেড়েছে দ্বিগুণেরও বেশি। এর প্রভাব পড়েছে ভাড়ায়। অতিরিক্ত খরচের কারণে আগে যারা সময় বাঁচাতে আকাশপথ বেছে নিতেন, তাদের অনেকে অন্য মাধ্যমগুলোতে ফিরে যাচ্ছেন। এতে আকাশপথে যাত্রীর সংখ্যায় প্রতি বছর যে প্রবৃদ্ধি হতো, তা হোঁচট খেয়েছে।

আজ বন্ধ হচ্ছে ইউএস বাংলার ফ্লাইট
আজ বৃহস্পতিবার থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে এই আকাশপথে বিমান ওড়া বন্ধ হচ্ছে ইউএস বাংলার বিমান বলে জানান সংশ্লিষ্টরা। যাত্রী সংকটের কারণে এক বছর আগে ঢাকা-বরিশাল রুটে বন্ধ হয়েছে নভো এয়ার। সেই একই কারণে আজ থেকে বন্ধ হচ্ছে ইউএস বাংলার ফ্লাইটও। এজেন্সিগুলো বলছে, পর্যাপ্ত যাত্রী পাওয়ার পরও এ ধরনের সিদ্ধান্ত অযৌক্তিক।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে কোন মন্তব্য করেননি ইউএস বাংলা কর্তৃপক্ষ। নাম প্রকাশ না করার শর্তে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, ধারণ ক্ষমতার পুরো যাত্রী পাওয়ার পরও ঢাকা-বরিশাল রুটে ফ্লাইট না চালানো রহস্যজনক। উড়োজাহাজ ও যাত্রী সংকটের কথা জানিয়ে এর আগে গত বছরে নভোএয়ারের চলাচল বন্ধ হয়। একই অজুহাত এবার ইউএস-বাংলারও।

এ পথের পর্যবেক্ষকরা জানান, ঢাকা-বরিশাল দেশের অন্য যে কোনো উড়াল পথের চেয়ে লাভজনক। মাত্র ৬১ অ্যারোনটিক্যাল মাইলের এই দূরত্বটুকু পার করতে সাড়ে ৩ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত ভাড়া নেয় বিমান সংস্থাগুলো। এরপরও বিমান চলাচল বন্ধ হয়ে গেলে ভোগান্তির শেষ থাকবে না তাদের।

এদিকে জরুরি প্রয়োজনের জন্য হলেও এই রুটে উড়োজাহাজ চালু রাখার দাবি যাত্রীদের। আর ট্যুরিস্ট ও ট্রাভেল এজেন্সিগুলো বলছে, যথেষ্ট যাত্রী পাওয়ার পরও ফ্লাইট কমানো বা বন্ধের যৌক্তিকতা নেই।