ঢাকা ১১:১৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

মক্কায় কুরআন প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশি দুই হাফেজের কৃতিত্ব

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০৬:৩২:২৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩
  • / ৪৫৬ বার পড়া হয়েছে
৭১ নিউজ বিডির সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

সৌদি আরবের মক্কায় অনুষ্ঠিত ৪৩তম আন্তর্জাতিক কুরআন প্রতিযোগিতায় ফের কৃতিত্ব বজায় রেখেছেন বাংলাদেশের দুই ক্ষুদে হাফেজ। প্রতিযোগিতায় পূর্ণ কুরআন হিফজ বিভাগে অংশ নিয়ে তৃতীয় স্থানে জায়গা করে নিয়েছেন ফয়সাল আহমেদ। বিজীয় হিসেবে এক লাখ ৮০ হাজার সৌদি রিয়াল (প্রায় ৫২ লাখ ৬২ হাজার ৫৭৯ টাকা) ও সম্মাননা পদক পেয়েছেন তিনি।

প্রতিযোগিতার চতুর্থ বিভাগে চতুর্থ হয়েছেন মো. মুশফিকুর রহমান। বিজীয় হিসেবে এক লাখ ২০ হাজার সৌদি রিয়াল (প্রায় ৩৫ লাখ ৮ হাজার ৩৮৬ টাকা) ও সম্মাননা পদক পেয়েছেন মো. মুশফিকুর।

স্থানীয় সময় বুধবার (৬ সেপ্টেম্বর) বাদ এশা বর্ণাঢ্য এক আয়োজনের মধ্যে বিজয়ীদের হাতে সৌদি আরবের বাদশাহ সালমানের পক্ষ থেকে পুরস্কার প্রদান করেন মক্কার ডেপুটি গভর্নর প্রিন্স বদর বিন সুলতান।

এর আগে গত ২৫ আগস্ট সৌদির ইসলাম ও দাওয়াহ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের তত্ত্বাবধানে মক্কায় ৪৩তম বাদশাহ আবদুল আজিজ আন্তর্জাতিক কুরআন প্রতিযোগিতা শুরু হয়। এতে বিশ্বের ১১৭টি দেশ থেকে অংশ নেন ১৬৬ জন প্রতিযোগী। প্রতিযোগিতায় পাঁচ বিভাগে বিজয়ীদের মোট ৪০ লাখ সৌদি রিয়াল পুরস্কার প্রদান করা হয়।

হাফেজ ফয়সাল আহমেদ রাজধানী ঢাকার মারকাজুত তাহফিজ ইন্টারন্যাশনাল মাদরাসায় পড়ালেখা করেছেন। তার গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়। সে মক্কার আন্তর্জাতিক এই কুরআন প্রতিযোগিতায় পূর্ণ কুরআন হিফজ বিভাগে অংশ নিয়েছেন। অপর প্রতিযোগী মো. মুশফিকুর পবিত্র কুরআনের ১৫ পারা হিফজ বিভাগে অংশ নিয়েছেন এই প্রতিযোগিতায়। কক্সবাজারের মা’হাদ আন-নিবরাসে কুনআন হিফজ সম্পন্ন করেছেন সে।

এদিকে সৌদিতে অনুষ্ঠিত এই আন্তর্জাতিক কুরআন প্রতিযোগিতার অনুষ্ঠানে এবারই প্রথমবারের মতো বিচারক প্যানেলে দায়িত্ব পালন করেছেন বাংলাদেশি আলেম, ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের মুহাদ্দিস হাফেজ মাওলানা ড. ওয়ালীয়ুর রহমান খান। অনুষ্ঠানে বিচারকার্য যথাযথভাবে পালন করার জন্য তাকেও বিশেষভাবে সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত বছর বাংলাদেশ থেকে প্রতিযোগিতায় তাজবিদসহ অর্ধ-কুরআন হিফজ বিভাগে অংশ নিয়ে তৃতীয় হয়েছিলেন হাফেজ সালেহ আহমেদ তাকরীম। বিজয়ী হিসেবে তাকে এক লাখ রিয়াল (প্রায় সাড়ে ২৭ লাখ টাকা) পুরস্কার ও সম্মাননা পদক প্রদান করা হয়েছিল।

নিউজটি শেয়ার করুন

মক্কায় কুরআন প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশি দুই হাফেজের কৃতিত্ব

আপডেট সময় : ০৬:৩২:২৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩

সৌদি আরবের মক্কায় অনুষ্ঠিত ৪৩তম আন্তর্জাতিক কুরআন প্রতিযোগিতায় ফের কৃতিত্ব বজায় রেখেছেন বাংলাদেশের দুই ক্ষুদে হাফেজ। প্রতিযোগিতায় পূর্ণ কুরআন হিফজ বিভাগে অংশ নিয়ে তৃতীয় স্থানে জায়গা করে নিয়েছেন ফয়সাল আহমেদ। বিজীয় হিসেবে এক লাখ ৮০ হাজার সৌদি রিয়াল (প্রায় ৫২ লাখ ৬২ হাজার ৫৭৯ টাকা) ও সম্মাননা পদক পেয়েছেন তিনি।

প্রতিযোগিতার চতুর্থ বিভাগে চতুর্থ হয়েছেন মো. মুশফিকুর রহমান। বিজীয় হিসেবে এক লাখ ২০ হাজার সৌদি রিয়াল (প্রায় ৩৫ লাখ ৮ হাজার ৩৮৬ টাকা) ও সম্মাননা পদক পেয়েছেন মো. মুশফিকুর।

স্থানীয় সময় বুধবার (৬ সেপ্টেম্বর) বাদ এশা বর্ণাঢ্য এক আয়োজনের মধ্যে বিজয়ীদের হাতে সৌদি আরবের বাদশাহ সালমানের পক্ষ থেকে পুরস্কার প্রদান করেন মক্কার ডেপুটি গভর্নর প্রিন্স বদর বিন সুলতান।

এর আগে গত ২৫ আগস্ট সৌদির ইসলাম ও দাওয়াহ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের তত্ত্বাবধানে মক্কায় ৪৩তম বাদশাহ আবদুল আজিজ আন্তর্জাতিক কুরআন প্রতিযোগিতা শুরু হয়। এতে বিশ্বের ১১৭টি দেশ থেকে অংশ নেন ১৬৬ জন প্রতিযোগী। প্রতিযোগিতায় পাঁচ বিভাগে বিজয়ীদের মোট ৪০ লাখ সৌদি রিয়াল পুরস্কার প্রদান করা হয়।

হাফেজ ফয়সাল আহমেদ রাজধানী ঢাকার মারকাজুত তাহফিজ ইন্টারন্যাশনাল মাদরাসায় পড়ালেখা করেছেন। তার গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়। সে মক্কার আন্তর্জাতিক এই কুরআন প্রতিযোগিতায় পূর্ণ কুরআন হিফজ বিভাগে অংশ নিয়েছেন। অপর প্রতিযোগী মো. মুশফিকুর পবিত্র কুরআনের ১৫ পারা হিফজ বিভাগে অংশ নিয়েছেন এই প্রতিযোগিতায়। কক্সবাজারের মা’হাদ আন-নিবরাসে কুনআন হিফজ সম্পন্ন করেছেন সে।

এদিকে সৌদিতে অনুষ্ঠিত এই আন্তর্জাতিক কুরআন প্রতিযোগিতার অনুষ্ঠানে এবারই প্রথমবারের মতো বিচারক প্যানেলে দায়িত্ব পালন করেছেন বাংলাদেশি আলেম, ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের মুহাদ্দিস হাফেজ মাওলানা ড. ওয়ালীয়ুর রহমান খান। অনুষ্ঠানে বিচারকার্য যথাযথভাবে পালন করার জন্য তাকেও বিশেষভাবে সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত বছর বাংলাদেশ থেকে প্রতিযোগিতায় তাজবিদসহ অর্ধ-কুরআন হিফজ বিভাগে অংশ নিয়ে তৃতীয় হয়েছিলেন হাফেজ সালেহ আহমেদ তাকরীম। বিজয়ী হিসেবে তাকে এক লাখ রিয়াল (প্রায় সাড়ে ২৭ লাখ টাকা) পুরস্কার ও সম্মাননা পদক প্রদান করা হয়েছিল।