০৫:৪৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শিগগিরই শেষ হচ্ছে না রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ: গুতেরেস

রাশিয়া এবং ইউক্রেন উভয় দেশই নিজেদের সিদ্ধান্তে অটল থাকায় এই যুদ্ধের অবসান সহসাই হচ্ছে না বলে মন্তব্য করেছেন জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস।

ভারতের নয়াদিল্লিতি অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ও শক্তিশালী দেশগুলোর জোট জি-২০ শীর্ষ সম্মেলনের আগে গতকাল শুক্রবার (৮ সেপ্টেম্বর) এক সংবাদ সম্মেলনে এই মন্তব্য করেন জাতিসংঘপ্রধান।

তিনি বলেন, নিকট ভবিষ্যতে একটি সুন্দর পাওয়ার প্রত্যাশা করা ঠিক হবে না। কারন, আমার মনে হয়, দুপক্ষ এখনো এই সংঘাত চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে বসে আছে।

ভারতে অনুষ্ঠিত জি-২০ সম্মেলনে বৈশ্বিক সমস্যার বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করা হবে। বরাবরের মতো এবারের সম্মেলনের আলোচনায় বড় অংশজুড়ে থাকবে ইউক্রেন যুদ্ধ। তবে গত বছর ইন্দোনেশিয়ার বালি সম্মেলনে ইউক্রেন যুদ্ধ নিয়ে কোনো ঐকমত্যে পৌঁছাতে পারেনি বিশ্বনেতারা। এরপর থেকে তাদের মধ্যে এই মতবিরোধ বেড়েছে।

পশ্চিমারা ইউক্রেন যুদ্ধ নিয়ে রাশিয়ার নিন্দা করে জি-২০ প্রস্তাব গ্রহণ করতে চাইলেও আপত্তি রয়েছে মস্কো ও বেইজিংয়ের। এমনকি এবারের সম্মেলেনে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এবং চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং যোগদান পর্যন্ত করেননি। ফলে এবারের সম্মেলনে সর্বসম্মতভাবে দিল্লি ঘোষণাপত্র গৃহীত হওয়ার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে।

শিগগিরই শেষ হচ্ছে না রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ: গুতেরেস

আপডেট : ০৭:৫১:১৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩

রাশিয়া এবং ইউক্রেন উভয় দেশই নিজেদের সিদ্ধান্তে অটল থাকায় এই যুদ্ধের অবসান সহসাই হচ্ছে না বলে মন্তব্য করেছেন জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস।

ভারতের নয়াদিল্লিতি অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ও শক্তিশালী দেশগুলোর জোট জি-২০ শীর্ষ সম্মেলনের আগে গতকাল শুক্রবার (৮ সেপ্টেম্বর) এক সংবাদ সম্মেলনে এই মন্তব্য করেন জাতিসংঘপ্রধান।

তিনি বলেন, নিকট ভবিষ্যতে একটি সুন্দর পাওয়ার প্রত্যাশা করা ঠিক হবে না। কারন, আমার মনে হয়, দুপক্ষ এখনো এই সংঘাত চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে বসে আছে।

ভারতে অনুষ্ঠিত জি-২০ সম্মেলনে বৈশ্বিক সমস্যার বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করা হবে। বরাবরের মতো এবারের সম্মেলনের আলোচনায় বড় অংশজুড়ে থাকবে ইউক্রেন যুদ্ধ। তবে গত বছর ইন্দোনেশিয়ার বালি সম্মেলনে ইউক্রেন যুদ্ধ নিয়ে কোনো ঐকমত্যে পৌঁছাতে পারেনি বিশ্বনেতারা। এরপর থেকে তাদের মধ্যে এই মতবিরোধ বেড়েছে।

পশ্চিমারা ইউক্রেন যুদ্ধ নিয়ে রাশিয়ার নিন্দা করে জি-২০ প্রস্তাব গ্রহণ করতে চাইলেও আপত্তি রয়েছে মস্কো ও বেইজিংয়ের। এমনকি এবারের সম্মেলেনে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এবং চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং যোগদান পর্যন্ত করেননি। ফলে এবারের সম্মেলনে সর্বসম্মতভাবে দিল্লি ঘোষণাপত্র গৃহীত হওয়ার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে।