ঢাকা ১১:০০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪, ২৯ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

পর্তুগালের কাছে লজ্জা হার লুক্সেমবার্গের

ক্রীড়া ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০৬:৪২:৫১ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১২ সেপ্টেম্বর ২০২৩
  • / ৪২৮ বার পড়া হয়েছে
৭১ নিউজ বিডির সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপ ফুটবল বাছাইয়ে তিন খেলোয়াড়ের জোড়া গোলে লুক্সেমবার্গকে ৯-০ গোলের ব্যবধানে উড়িয়ে দিয়েছে স্বাগতিক পর্তুগাল। পর্তুগালের এস্তাদিও লাগার্ভের মাঠে মুখোমুখি হয়ে পর্তুগালের কাছে এই হারের লজ্জা পেল লুক্সেমবার্গ।

ম্যাচের ১২ মিনিট থেকেই শুরু হয় পর্তুগালের গোল উৎসব। গনসালো ইনাশিও শুরু করেন ধ্বংসযজ্ঞের প্রথম বাণ দিয়ে। তারপরই ম্যাচের ১৭ ও ৩৩ মিনিটে দুটি গোল করেন গনসালো রামোস। ব্যবধান দাঁড়ায় ৩-০। প্রথমার্ধের অতিরিক্ত সময়ে চতুর্থ গোলটি আসে আবার ইনাশিওর পা থেকে। তারও হয় জোড়া গোল।

দ্বিতীয়ার্ধেও অসহায় লুক্সেমবার্গ। ম্যাচে ফিরে আসা দূরে থাক, গোল হজমেই কুলিয়ে উঠতে পারছিলো না তারা। ম্যাচের ৫৭ মিনিটে আর ৬৭ মিনিটে পর্তুগালের হয়ে গোল দেন যথাক্রমে দিওগো জতা ও রিকার্ডো হর্তা। স্কোরবোর্ডে ব্যবধান যখন ৬-০ তখনও থামছিলো না পর্তুগালের ছেলেরা।

৫৭ ও ৬৭ মিনিটের পর ঠিক ৭৭ মিনিটের মাথায় আবার একটি গোল করেন দিওগো জতা। এবার জতার পূরণ হয় দুই গোল। এরইমধ্যে পর্তুগালের তিন খেলোয়াড় তুলে নেন দুটি করে গোল। ৭-০ ব্যবধান বাড়িয়ে ৮-০ করে দেয় ৮৩ মিনিটে দেয়া ব্র“নো ফার্নান্দেসের গোল।

কফিনের শেষ পেরেকটি মারেন ওয়াও ফেলিক্স। ৮৮ মিনিটে ৯-০ গোলের ব্যবধান করে দেন এই খেলোয়াড়। নির্ধারিত সময় শেষে ৯-০ ব্যবধানের হতাশা ও লজ্জা নিয়ে মাঠ ছাড়ে লুক্সেমবার্গ।

নিউজটি শেয়ার করুন

পর্তুগালের কাছে লজ্জা হার লুক্সেমবার্গের

আপডেট সময় : ০৬:৪২:৫১ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১২ সেপ্টেম্বর ২০২৩

ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপ ফুটবল বাছাইয়ে তিন খেলোয়াড়ের জোড়া গোলে লুক্সেমবার্গকে ৯-০ গোলের ব্যবধানে উড়িয়ে দিয়েছে স্বাগতিক পর্তুগাল। পর্তুগালের এস্তাদিও লাগার্ভের মাঠে মুখোমুখি হয়ে পর্তুগালের কাছে এই হারের লজ্জা পেল লুক্সেমবার্গ।

ম্যাচের ১২ মিনিট থেকেই শুরু হয় পর্তুগালের গোল উৎসব। গনসালো ইনাশিও শুরু করেন ধ্বংসযজ্ঞের প্রথম বাণ দিয়ে। তারপরই ম্যাচের ১৭ ও ৩৩ মিনিটে দুটি গোল করেন গনসালো রামোস। ব্যবধান দাঁড়ায় ৩-০। প্রথমার্ধের অতিরিক্ত সময়ে চতুর্থ গোলটি আসে আবার ইনাশিওর পা থেকে। তারও হয় জোড়া গোল।

দ্বিতীয়ার্ধেও অসহায় লুক্সেমবার্গ। ম্যাচে ফিরে আসা দূরে থাক, গোল হজমেই কুলিয়ে উঠতে পারছিলো না তারা। ম্যাচের ৫৭ মিনিটে আর ৬৭ মিনিটে পর্তুগালের হয়ে গোল দেন যথাক্রমে দিওগো জতা ও রিকার্ডো হর্তা। স্কোরবোর্ডে ব্যবধান যখন ৬-০ তখনও থামছিলো না পর্তুগালের ছেলেরা।

৫৭ ও ৬৭ মিনিটের পর ঠিক ৭৭ মিনিটের মাথায় আবার একটি গোল করেন দিওগো জতা। এবার জতার পূরণ হয় দুই গোল। এরইমধ্যে পর্তুগালের তিন খেলোয়াড় তুলে নেন দুটি করে গোল। ৭-০ ব্যবধান বাড়িয়ে ৮-০ করে দেয় ৮৩ মিনিটে দেয়া ব্র“নো ফার্নান্দেসের গোল।

কফিনের শেষ পেরেকটি মারেন ওয়াও ফেলিক্স। ৮৮ মিনিটে ৯-০ গোলের ব্যবধান করে দেন এই খেলোয়াড়। নির্ধারিত সময় শেষে ৯-০ ব্যবধানের হতাশা ও লজ্জা নিয়ে মাঠ ছাড়ে লুক্সেমবার্গ।