ঢাকা ০১:০৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

খুলে দেওয়া হয়েছে কাপ্তাই বাঁধের ১৬টি গেইটের ৬ ইঞ্চি

রাঙামাটি প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ০৯:২৭:৫৫ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩
  • / ৪৬৩ বার পড়া হয়েছে
৭১ নিউজ বিডির সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

কাপ্তাই হ্রদে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় হ্রদের উজান ও ভাটি এলাকার বন্যা নিয়ন্ত্রণে ১৬টি গেইট ৬ ইঞ্চি করে খুলে দেওয়া হয়েছে। শুক্রবার (১৫ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০টা থেকে এই গেইটগুলো খোলা হয়। ১৬টি গেইট দিয়ে ৯ হাজার কিউসেক পানি ছাড়ার কথা জানিয়েছে কর্ণফুলি জলবিদ্যুৎকেন্দ্র।

কর্ণফুলি জলবিদ্যুৎকেন্দ্রের ব্যবস্থাপক এটিএম আব্দুজ্জাহের জানান, সকাল ১০টা থেকে হ্রদের উজান ও ভাটির এলাকার বন্যা নিয়ন্ত্রণের জন্য কাপ্তাই বাঁধের ১৬টি গেইট ৬ ইঞ্চি করে খোলা হয়েছে। এতে প্রতি সেকেন্ডে ৯ হাজার কিউসেক পানি নিষ্কাশিত হচ্ছে। এছাড়াও বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য প্রতি সেকেন্ডে ২৫ হাজার কিউসেক পানি নিষ্কাশন করা হচ্ছে। পানি ও বৃষ্টি বৃদ্ধি পেতে থাকলে গেইট খোলার পরিমাণ আরো বাড়ানো হবে।

বর্তমানে কাপ্তাই হ্রদে পানি আছে ১০৭.৫৪ এমএসএল (মিনস সী লেভেল)। কাপ্তাই হ্রদে সর্বোচ্চ পানি ধারণক্ষমতা ১০৯ এমএসএল (মিনস সী লেভেল)। কিন্তু দীর্ঘ সময় ধরে কাপ্তাই হ্রদ খনন না হওয়ায় পলি জমে হ্রদের তলদেশ ভরাট হয়ে যাওয়ায় অল্পপানিতেই হ্রদ পরিপূর্ণ হয়ে যায়।

অপরদিকে প্রতিদিনই বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা ঢলে কাপ্তাই হ্রদের পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নিম্নাঞ্চলের বাড়ি ঘরে প্রবেশ করছে হ্রদের পানি, দেখা দিয়েছে জনদুর্ভোগ।

কর্ণফুলী জলবিদ্যুৎকেন্দ্রের সূত্রে জানা যায়, প্রতিদিন কর্ণফুলি জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রের ৫টি ইউনিট থেকে মোট ২০০-২০৪ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপন্ন হচ্ছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

খুলে দেওয়া হয়েছে কাপ্তাই বাঁধের ১৬টি গেইটের ৬ ইঞ্চি

আপডেট সময় : ০৯:২৭:৫৫ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩

কাপ্তাই হ্রদে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় হ্রদের উজান ও ভাটি এলাকার বন্যা নিয়ন্ত্রণে ১৬টি গেইট ৬ ইঞ্চি করে খুলে দেওয়া হয়েছে। শুক্রবার (১৫ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০টা থেকে এই গেইটগুলো খোলা হয়। ১৬টি গেইট দিয়ে ৯ হাজার কিউসেক পানি ছাড়ার কথা জানিয়েছে কর্ণফুলি জলবিদ্যুৎকেন্দ্র।

কর্ণফুলি জলবিদ্যুৎকেন্দ্রের ব্যবস্থাপক এটিএম আব্দুজ্জাহের জানান, সকাল ১০টা থেকে হ্রদের উজান ও ভাটির এলাকার বন্যা নিয়ন্ত্রণের জন্য কাপ্তাই বাঁধের ১৬টি গেইট ৬ ইঞ্চি করে খোলা হয়েছে। এতে প্রতি সেকেন্ডে ৯ হাজার কিউসেক পানি নিষ্কাশিত হচ্ছে। এছাড়াও বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য প্রতি সেকেন্ডে ২৫ হাজার কিউসেক পানি নিষ্কাশন করা হচ্ছে। পানি ও বৃষ্টি বৃদ্ধি পেতে থাকলে গেইট খোলার পরিমাণ আরো বাড়ানো হবে।

বর্তমানে কাপ্তাই হ্রদে পানি আছে ১০৭.৫৪ এমএসএল (মিনস সী লেভেল)। কাপ্তাই হ্রদে সর্বোচ্চ পানি ধারণক্ষমতা ১০৯ এমএসএল (মিনস সী লেভেল)। কিন্তু দীর্ঘ সময় ধরে কাপ্তাই হ্রদ খনন না হওয়ায় পলি জমে হ্রদের তলদেশ ভরাট হয়ে যাওয়ায় অল্পপানিতেই হ্রদ পরিপূর্ণ হয়ে যায়।

অপরদিকে প্রতিদিনই বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা ঢলে কাপ্তাই হ্রদের পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নিম্নাঞ্চলের বাড়ি ঘরে প্রবেশ করছে হ্রদের পানি, দেখা দিয়েছে জনদুর্ভোগ।

কর্ণফুলী জলবিদ্যুৎকেন্দ্রের সূত্রে জানা যায়, প্রতিদিন কর্ণফুলি জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রের ৫টি ইউনিট থেকে মোট ২০০-২০৪ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপন্ন হচ্ছে।