ঢাকা ০৬:৩২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

‘ব্যাটসম্যান’ নাসুম-মেহেদীতে ২৬৫ বাংলাদেশের

ক্রীড়া ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০৩:০৯:০৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩
  • / ৪৬৯ বার পড়া হয়েছে
৭১ নিউজ বিডির সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

যে নাসুমের মূল ভূমিকা স্পিনারের, সে স্পিনারই আজ দলের প্রয়োজনে ব্যাটসম্যান হয়ে গেলেন। লিটন-বিজয়দের ব্যর্থ হওয়ার দিনে সেটাই বাংলাদেশকে সাহায্য করল অনেক। ভারতের বিপক্ষে ৫০ ওভার শেষে ৮ উইকেট হারিয়ে ২৬৫ রান করেছে বাংলাদেশ।

ইনিংসের ভিত সাকিবই গড়ে দিয়ে গিয়েছিলেন। সাকিবের হাত থেকে ব্যাটন নিয়ে এগিয়ে গেছেন তাওহীদ হৃদয়, নাসুম আহমেদ আর শেখ মেহেদী হাসান। হ্যাঁ, ভুল পড়েননি। নাসুম আর মেহেদীই। যে নাসুমের মূল ভূমিকা স্পিনারের, সে স্পিনারই আজ দলের প্রয়োজনে ব্যাটসম্যান হয়ে গেলেন। লিটন-বিজয়দের ব্যর্থ হওয়ার দিনে সেটাই বাংলাদেশকে সাহায্য করল অনেক। ভারতের বিপক্ষে ৫০ ওভার শেষে ৮ উইকেট হারিয়ে ২৬৫ রান করেছে বাংলাদেশ। যার পেছনে নাসুমের ৪৫ বলে ৪৪ রান আর শেখ মেহেদীর ২৩ বলে ২৯ রানের ইনিংস দুটির গুরুত্ব কম নয় মোটেও।

ওয়ানডেতে এর আগে নাসুমের সর্বোচ্চ রান ছিল ১৮। সে নাসুমই আর একটু হলে ফিফটি পেয়ে যাচ্ছিলেন। ক্রিজে যখন কোনো স্বীকৃত ব্যাটসম্যান ছিলেন না, তখন শেখ মেহেদীকে নিয়ে এ নাসুমই ৪৪ রান তোলেন। পরে প্রসিদ্ধ কৃষ্ণর স্লোয়ার বুঝতে না পেরে ইনসাইড এজে বোল্ড হন নাসুম। সাকিব-হৃদয়ের পর বাংলাদেশের ইনিংসের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ জুটি এটাই।

শেখ মেহেদী অবশ্য শেষ পর্যন্ত টিকে গেছেন, অভিষিক্ত তানজিম হাসান সাকিবকে সঙ্গী করে। এক চার-ছক্কায় ৮ বলে ১৪ করেছেন ‘ছোট’ সাকিব, আর তিন চারে শেখ মেহেদীর সংগ্রহ ২৩ বলে ২৯।

এর আগে সাকিবকে হারানোর পর বাংলাদেশকে তাওহীদ হৃদয়ই টেনে নিয়ে যাচ্ছিলেন। কিন্তু ফিফটি করার কিছুক্ষণ পর মোহাম্মদ শামির শর্ট লেংথের বলকে পুল করতে গিয়ে নিজের বিপদ নিজেই ডেকে আনেন এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান। ডিপ মিড উইকেটে তিলক ভার্মার হাতে ধরা পড়ার আগে ৮১ বলে ৫৪ রান তোলেন এই ব্যাটসম্যান। এশিয়া কাপের শুরুটা বাজে হলেও শেষ দুই ম্যাচে ব্যাট হাতে নিজের ছন্দ বেশ ভালোভাবেই খুঁজে পেয়েছেন এই মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান। ওয়ানডেতে ১৩ ইনিংস খেলে ৫ নম্বর ফিফটি করলেন তিনি।

এর আগের গল্পটা সাকিব আল হাসানের। টুর্নামেন্টের মাঝপথে দেশে আসা নিয়ে বেশ সমালোচনা হচ্ছিল তাঁর, কিন্তু সেসব সমালোচনার জবাব সাকিবসুলভ ভঙ্গিমাতেই দিয়েছেন, ৮৫ বলে ৮০ রানের ইনিংস খেলে। টপ অর্ডারের ব্যর্থতাকে হৃদয়কে নিয়ে ঢেকেছেন।

ভারতের পক্ষে সফলতম বোলার শার্দুল ঠাকুর। ১০ ওভারে ৬৫ রানে ৩ তিন উইকেট নিয়েছে, শামির উইকেট দুটি। প্রসিদ্ধ, অক্ষর আর জাদেজা নিয়েছেন একটি করে উইকেট।

নিউজটি শেয়ার করুন

‘ব্যাটসম্যান’ নাসুম-মেহেদীতে ২৬৫ বাংলাদেশের

আপডেট সময় : ০৩:০৯:০৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩

যে নাসুমের মূল ভূমিকা স্পিনারের, সে স্পিনারই আজ দলের প্রয়োজনে ব্যাটসম্যান হয়ে গেলেন। লিটন-বিজয়দের ব্যর্থ হওয়ার দিনে সেটাই বাংলাদেশকে সাহায্য করল অনেক। ভারতের বিপক্ষে ৫০ ওভার শেষে ৮ উইকেট হারিয়ে ২৬৫ রান করেছে বাংলাদেশ।

ইনিংসের ভিত সাকিবই গড়ে দিয়ে গিয়েছিলেন। সাকিবের হাত থেকে ব্যাটন নিয়ে এগিয়ে গেছেন তাওহীদ হৃদয়, নাসুম আহমেদ আর শেখ মেহেদী হাসান। হ্যাঁ, ভুল পড়েননি। নাসুম আর মেহেদীই। যে নাসুমের মূল ভূমিকা স্পিনারের, সে স্পিনারই আজ দলের প্রয়োজনে ব্যাটসম্যান হয়ে গেলেন। লিটন-বিজয়দের ব্যর্থ হওয়ার দিনে সেটাই বাংলাদেশকে সাহায্য করল অনেক। ভারতের বিপক্ষে ৫০ ওভার শেষে ৮ উইকেট হারিয়ে ২৬৫ রান করেছে বাংলাদেশ। যার পেছনে নাসুমের ৪৫ বলে ৪৪ রান আর শেখ মেহেদীর ২৩ বলে ২৯ রানের ইনিংস দুটির গুরুত্ব কম নয় মোটেও।

ওয়ানডেতে এর আগে নাসুমের সর্বোচ্চ রান ছিল ১৮। সে নাসুমই আর একটু হলে ফিফটি পেয়ে যাচ্ছিলেন। ক্রিজে যখন কোনো স্বীকৃত ব্যাটসম্যান ছিলেন না, তখন শেখ মেহেদীকে নিয়ে এ নাসুমই ৪৪ রান তোলেন। পরে প্রসিদ্ধ কৃষ্ণর স্লোয়ার বুঝতে না পেরে ইনসাইড এজে বোল্ড হন নাসুম। সাকিব-হৃদয়ের পর বাংলাদেশের ইনিংসের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ জুটি এটাই।

শেখ মেহেদী অবশ্য শেষ পর্যন্ত টিকে গেছেন, অভিষিক্ত তানজিম হাসান সাকিবকে সঙ্গী করে। এক চার-ছক্কায় ৮ বলে ১৪ করেছেন ‘ছোট’ সাকিব, আর তিন চারে শেখ মেহেদীর সংগ্রহ ২৩ বলে ২৯।

এর আগে সাকিবকে হারানোর পর বাংলাদেশকে তাওহীদ হৃদয়ই টেনে নিয়ে যাচ্ছিলেন। কিন্তু ফিফটি করার কিছুক্ষণ পর মোহাম্মদ শামির শর্ট লেংথের বলকে পুল করতে গিয়ে নিজের বিপদ নিজেই ডেকে আনেন এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান। ডিপ মিড উইকেটে তিলক ভার্মার হাতে ধরা পড়ার আগে ৮১ বলে ৫৪ রান তোলেন এই ব্যাটসম্যান। এশিয়া কাপের শুরুটা বাজে হলেও শেষ দুই ম্যাচে ব্যাট হাতে নিজের ছন্দ বেশ ভালোভাবেই খুঁজে পেয়েছেন এই মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান। ওয়ানডেতে ১৩ ইনিংস খেলে ৫ নম্বর ফিফটি করলেন তিনি।

এর আগের গল্পটা সাকিব আল হাসানের। টুর্নামেন্টের মাঝপথে দেশে আসা নিয়ে বেশ সমালোচনা হচ্ছিল তাঁর, কিন্তু সেসব সমালোচনার জবাব সাকিবসুলভ ভঙ্গিমাতেই দিয়েছেন, ৮৫ বলে ৮০ রানের ইনিংস খেলে। টপ অর্ডারের ব্যর্থতাকে হৃদয়কে নিয়ে ঢেকেছেন।

ভারতের পক্ষে সফলতম বোলার শার্দুল ঠাকুর। ১০ ওভারে ৬৫ রানে ৩ তিন উইকেট নিয়েছে, শামির উইকেট দুটি। প্রসিদ্ধ, অক্ষর আর জাদেজা নিয়েছেন একটি করে উইকেট।