ঢাকা ০৫:১৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

পদ্মা রেলসেতুতে চলল পণ্যবাহী ট্রেন

ফরিদপুর প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ০৬:৪৬:৪৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩
  • / ৪৭১ বার পড়া হয়েছে
৭১ নিউজ বিডির সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

ফরিদপুরের ভাঙ্গা থেকে নবনির্মত রেলপথের সক্ষমতা নির্ণয়ের জন্য শনিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) দ্বিতীয় দিনের মতো পরীক্ষামূলক ট্রেন চলাচল শুরু হয়েছে। সকাল ৭টা ৪০ মিনিটে ফরিদপুরের ভাঙ্গা স্টেশন থেকে যাত্রা শুরু করে পণ্যবাহী একটি ট্রেন। রেল সড়কটির সক্ষমতা নির্ণয় ও গতি পরীক্ষার জন্য ট্রেনটিতে ৩৫০ টন ওজন বহনকারী পাচটি বগিসহ একটি ইঞ্জিন রয়েছে।

ঢাকা-ফরিদপুর রেল প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল সাঈদ আহমেদ বলেন, শুক্রবার সফলভাবে যাত্রীবাহী ট্রেনের গতি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। আজ শনিবার পাঁচটি পণ্যবাহী বগিসহ ইঞ্জিন নিয়ে আমরা গতি পরীক্ষা করছি। প্রথম পর্যায়ে আমরা ৩৫০ টন পাথর বোঝাই নিয়ে যাত্রা শুরু করেছি। আমরা মাওয়া স্টেশনে গিয়ে সেখান থেকে আবার ফিরে আসবো। পণ্যবাহী ট্রেনটি সর্বোচ্চ গতি থাকবে ৮০ কিলোমিটার, প্রথম দিকে আমরা সর্বোচ্চ গতিতে যাবো না।

পণ্যবাহী ট্রেনটির পরিচালক পলাশ হোসেন বলেন, আমরা খুবই আনন্দিত গতকাল যাত্রীবাহী ট্রেনটি গতি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। আশা করছি আজকেও তেমনটি হবে। ট্রেনটিতে রেলওয়ের উদ্বোধন কর্মকর্তা ও প্রকল্প পরিচালক রয়েছেন।

ফরিদপুর চেম্বার অব কমার্সের প্রেসিডেন্ট নজরুল ইসলাম জানিয়েছেন, ফরিদপুর ঢাকা পণ্যবাহী ট্রেন চলাচলের মধ্য দিয়ে এ অঞ্চলের মানুষের অর্থনীতির মুক্তি আসবে বলে আমরা মনে করি। ব্যবসায়ীরা তাদের পণ্য খুব সহজেই স্বল্প খরচে ঢাকায় নিতে পারবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

পদ্মা রেলসেতুতে চলল পণ্যবাহী ট্রেন

আপডেট সময় : ০৬:৪৬:৪৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩

ফরিদপুরের ভাঙ্গা থেকে নবনির্মত রেলপথের সক্ষমতা নির্ণয়ের জন্য শনিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) দ্বিতীয় দিনের মতো পরীক্ষামূলক ট্রেন চলাচল শুরু হয়েছে। সকাল ৭টা ৪০ মিনিটে ফরিদপুরের ভাঙ্গা স্টেশন থেকে যাত্রা শুরু করে পণ্যবাহী একটি ট্রেন। রেল সড়কটির সক্ষমতা নির্ণয় ও গতি পরীক্ষার জন্য ট্রেনটিতে ৩৫০ টন ওজন বহনকারী পাচটি বগিসহ একটি ইঞ্জিন রয়েছে।

ঢাকা-ফরিদপুর রেল প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল সাঈদ আহমেদ বলেন, শুক্রবার সফলভাবে যাত্রীবাহী ট্রেনের গতি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। আজ শনিবার পাঁচটি পণ্যবাহী বগিসহ ইঞ্জিন নিয়ে আমরা গতি পরীক্ষা করছি। প্রথম পর্যায়ে আমরা ৩৫০ টন পাথর বোঝাই নিয়ে যাত্রা শুরু করেছি। আমরা মাওয়া স্টেশনে গিয়ে সেখান থেকে আবার ফিরে আসবো। পণ্যবাহী ট্রেনটি সর্বোচ্চ গতি থাকবে ৮০ কিলোমিটার, প্রথম দিকে আমরা সর্বোচ্চ গতিতে যাবো না।

পণ্যবাহী ট্রেনটির পরিচালক পলাশ হোসেন বলেন, আমরা খুবই আনন্দিত গতকাল যাত্রীবাহী ট্রেনটি গতি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। আশা করছি আজকেও তেমনটি হবে। ট্রেনটিতে রেলওয়ের উদ্বোধন কর্মকর্তা ও প্রকল্প পরিচালক রয়েছেন।

ফরিদপুর চেম্বার অব কমার্সের প্রেসিডেন্ট নজরুল ইসলাম জানিয়েছেন, ফরিদপুর ঢাকা পণ্যবাহী ট্রেন চলাচলের মধ্য দিয়ে এ অঞ্চলের মানুষের অর্থনীতির মুক্তি আসবে বলে আমরা মনে করি। ব্যবসায়ীরা তাদের পণ্য খুব সহজেই স্বল্প খরচে ঢাকায় নিতে পারবে।