ঢাকা ০৫:৩৩ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

ইউক্রেনে দীর্ঘ যুদ্ধের জন্য প্রস্তুতি নিতে বললেন ন্যাটো প্রধান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০৬:৫২:১৬ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩
  • / ৪৫৭ বার পড়া হয়েছে
৭১ নিউজ বিডির সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

ইউক্রেনে দীর্ঘ সময় ধরে যুদ্ধে চলতে পারে বলে সতর্কবার্তা দিয়েছেন পশ্চিমা সামরিক জোট ন্যাটোর প্রধান জেনস স্টলটেনবার্গ । জার্মান সংবাদমাধ্যম ফাঙ্কেকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি এসব কথা বলে।

সাক্ষাৎকারে ন্যাটোর প্রধান বলেন, সব যুদ্ধই প্রত্যাশার চেয়ে বেশি সময় ধরে চলতে থাকে। এ জন্য ইউক্রেনে দীর্ঘ যুদ্ধের জন্য আমাদের প্রস্তুত হতে হবে।

২০২২ সালের ফেব্রুয়ারিতে ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরু করে রাশিয়া। গত জুনে কিয়েভও রাশিয়ার বিরুদ্ধে পাল্টা আক্রমণ শুরু করে। তবে এতে খুব বেশি এগোতে পারেনি ইউক্রেন।

এমন পরিস্থিতিতে ন্যাটো প্রধান বলেন, আমরা সবাই দ্রুত শান্তি কামনা করছি। যদি ইউক্রেন ও ভলোদিমির জেলেনস্কি যুদ্ধ থামিয়ে দেন তাহলে দেশটির অস্তিত্ব থাকবে না। তবে রাশিয়া ও ভ্লাদিমির পুতিন যুদ্ধ থামালে আমরা শান্তি পেতে পারি।

ন্যাটোতে ইউক্রেনের অন্তর্ভুক্তির বিষয়ে স্টলটেনবার্গ বলেন, ইউক্রেন আমাদের সঙ্গে থাকবে এতে কোনো সন্দেহ নেই। গত জুলাইতে হওয়া শীর্ষ সম্মেলনে ন্যাটোর খুব কাছে চলে এসেছে কিয়েভ। এই যুদ্ধ শেষ হলে আমাদের ইউক্রেনের নিরাপত্তার নিশ্চয়তা প্রয়োজন। আর তা না হলে ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি হতে পারে।

গত জুলাইতে লিথুয়ানিয়ার রাজধানি ভিলনিয়াসে ন্যাটোর শীর্ষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এসময় সামরিক জোটটির নেতা জানান,কিছু শর্ত পূরণ হলে ইউক্রেন জোটে যোগ দিতে পারে।

নিউজটি শেয়ার করুন

ইউক্রেনে দীর্ঘ যুদ্ধের জন্য প্রস্তুতি নিতে বললেন ন্যাটো প্রধান

আপডেট সময় : ০৬:৫২:১৬ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩

ইউক্রেনে দীর্ঘ সময় ধরে যুদ্ধে চলতে পারে বলে সতর্কবার্তা দিয়েছেন পশ্চিমা সামরিক জোট ন্যাটোর প্রধান জেনস স্টলটেনবার্গ । জার্মান সংবাদমাধ্যম ফাঙ্কেকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি এসব কথা বলে।

সাক্ষাৎকারে ন্যাটোর প্রধান বলেন, সব যুদ্ধই প্রত্যাশার চেয়ে বেশি সময় ধরে চলতে থাকে। এ জন্য ইউক্রেনে দীর্ঘ যুদ্ধের জন্য আমাদের প্রস্তুত হতে হবে।

২০২২ সালের ফেব্রুয়ারিতে ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরু করে রাশিয়া। গত জুনে কিয়েভও রাশিয়ার বিরুদ্ধে পাল্টা আক্রমণ শুরু করে। তবে এতে খুব বেশি এগোতে পারেনি ইউক্রেন।

এমন পরিস্থিতিতে ন্যাটো প্রধান বলেন, আমরা সবাই দ্রুত শান্তি কামনা করছি। যদি ইউক্রেন ও ভলোদিমির জেলেনস্কি যুদ্ধ থামিয়ে দেন তাহলে দেশটির অস্তিত্ব থাকবে না। তবে রাশিয়া ও ভ্লাদিমির পুতিন যুদ্ধ থামালে আমরা শান্তি পেতে পারি।

ন্যাটোতে ইউক্রেনের অন্তর্ভুক্তির বিষয়ে স্টলটেনবার্গ বলেন, ইউক্রেন আমাদের সঙ্গে থাকবে এতে কোনো সন্দেহ নেই। গত জুলাইতে হওয়া শীর্ষ সম্মেলনে ন্যাটোর খুব কাছে চলে এসেছে কিয়েভ। এই যুদ্ধ শেষ হলে আমাদের ইউক্রেনের নিরাপত্তার নিশ্চয়তা প্রয়োজন। আর তা না হলে ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি হতে পারে।

গত জুলাইতে লিথুয়ানিয়ার রাজধানি ভিলনিয়াসে ন্যাটোর শীর্ষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এসময় সামরিক জোটটির নেতা জানান,কিছু শর্ত পূরণ হলে ইউক্রেন জোটে যোগ দিতে পারে।