ঢাকা ০৪:৪৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

চার দেশের ১১ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানের ওপর নিষেধাজ্ঞা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০৬:০৮:০৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২৩
  • / ৩৭৪ বার পড়া হয়েছে
৭১ নিউজ বিডির সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

ইরানের ড্রোন ও সামরিক উড়োজাহাজ তৈরির তৎপরতাকে কেন্দ্র করে চার দেশের সাত ব্যক্তি ও চার প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে নতুন নিষেধাজ্ঞা ঘোষণা করেছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশ চারটি হলোÑ ইরান, রাশিয়া, চীন ও তুরস্ক।

এক বিবৃতিতে মঙ্গলবার মার্কিন ট্রেজারি বিভাগ জানিয়েছে, ইরান এয়ারক্রাফট ম্যানুফ্যাকচারিং ইন্ডাস্ট্রিয়াল কোম্পানিকে ড্রোন ও উড়োজাহাজ তৈরিতে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা দেয়া এবং এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট আর্থিক লেনদেনের অভিযোগেএই নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে।

ইরানের চালকবিহীন বিমান (ড্রোন) তৈরির তৎপরতার বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র পদক্ষেপ অব্যাহত রাখবে বলে জানান, মার্কিন ট্রেজারি বিভাগের সন্ত্রাসবাদ এবং আর্থিক গোয়েন্দাসংক্রান্ত আন্ডার সেক্রেটারি ব্রায়ান নেলসন।

এর আগে, ইরানি কোম্পানির কাছে উড়োজাহাজ ও ড্রোনের উপকরণ বিক্রির অভিযোগে চীনভিত্তিক ৫টি কোম্পানি ও এক ব্যক্তির ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল ওয়াশিংটন।

এদিকে, কাতারের মধ্যস্থতায় সম্প্রতি বন্দিবিনিময় চুক্তি বাস্তবায়নের ফলে ওয়াশিংটন-তেহরানের মধ্যে উত্তেজনা কিছুটা কমেছে। তবে এ চুক্তি ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচি, মধ্যপ্রাচ্যে বিদ্রোহীদের মদদ বা উপসাগরীয় দেশগুলোতে মার্কিন সামরিক উপস্থিতি ও নিষেধাজ্ঞার মতো অন্যান্য ইস্যু সমাধানে দীর্ঘদিনের দুই শত্রু দেশকে আগ্রহী করে তুলবে কি না, তা এখনো স্পষ্ট নয়। ফলে ইরানের ওপর ভবিষ্যতে আরও নিষেধাজ্ঞা দেয়া হতে পারে বলে মনে করছেন মার্কিন কর্মকর্তারা।

নিউজটি শেয়ার করুন

চার দেশের ১১ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানের ওপর নিষেধাজ্ঞা

আপডেট সময় : ০৬:০৮:০৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২৩

ইরানের ড্রোন ও সামরিক উড়োজাহাজ তৈরির তৎপরতাকে কেন্দ্র করে চার দেশের সাত ব্যক্তি ও চার প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে নতুন নিষেধাজ্ঞা ঘোষণা করেছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশ চারটি হলোÑ ইরান, রাশিয়া, চীন ও তুরস্ক।

এক বিবৃতিতে মঙ্গলবার মার্কিন ট্রেজারি বিভাগ জানিয়েছে, ইরান এয়ারক্রাফট ম্যানুফ্যাকচারিং ইন্ডাস্ট্রিয়াল কোম্পানিকে ড্রোন ও উড়োজাহাজ তৈরিতে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা দেয়া এবং এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট আর্থিক লেনদেনের অভিযোগেএই নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে।

ইরানের চালকবিহীন বিমান (ড্রোন) তৈরির তৎপরতার বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র পদক্ষেপ অব্যাহত রাখবে বলে জানান, মার্কিন ট্রেজারি বিভাগের সন্ত্রাসবাদ এবং আর্থিক গোয়েন্দাসংক্রান্ত আন্ডার সেক্রেটারি ব্রায়ান নেলসন।

এর আগে, ইরানি কোম্পানির কাছে উড়োজাহাজ ও ড্রোনের উপকরণ বিক্রির অভিযোগে চীনভিত্তিক ৫টি কোম্পানি ও এক ব্যক্তির ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল ওয়াশিংটন।

এদিকে, কাতারের মধ্যস্থতায় সম্প্রতি বন্দিবিনিময় চুক্তি বাস্তবায়নের ফলে ওয়াশিংটন-তেহরানের মধ্যে উত্তেজনা কিছুটা কমেছে। তবে এ চুক্তি ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচি, মধ্যপ্রাচ্যে বিদ্রোহীদের মদদ বা উপসাগরীয় দেশগুলোতে মার্কিন সামরিক উপস্থিতি ও নিষেধাজ্ঞার মতো অন্যান্য ইস্যু সমাধানে দীর্ঘদিনের দুই শত্রু দেশকে আগ্রহী করে তুলবে কি না, তা এখনো স্পষ্ট নয়। ফলে ইরানের ওপর ভবিষ্যতে আরও নিষেধাজ্ঞা দেয়া হতে পারে বলে মনে করছেন মার্কিন কর্মকর্তারা।