ঢাকা ১১:৩৬ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

মৌসুমি জ্বরের ঝুঁকিতে শিশু ও বয়স্করা

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় : ০৯:২৩:৪২ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২৩
  • / ৪৪৮ বার পড়া হয়েছে
৭১ নিউজ বিডির সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

ডেঙ্গুর পাশাপাশি ইনফ্লুয়েঞ্জা সহ নানা জ্বরে আক্রান্ত হচ্ছে শিশু সহ প্রায় সব বয়সীরা। মৌসুমি জ্বরে আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর হাসপাতালগুলোতে রোগী এখন দ্বিগুণের বেশি।

চিকিৎসকরা বলছেন, ঋতু পরিবর্তনের এই সময়ে বেশি ঝুঁকিতে রয়েছে শিশু ও বয়স্করা।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের বহির্বিভাগে দেখা যায়, মেডিসিন, বক্ষব্যাধি সহ শিশু চিকিৎসার প্রায় সব বিভাগেই উপচে পড়া ভিড়। বেশ কিছুদিন ধরে এমনই চলছে।

হাসপাতালে রোগীদের নিয়ে সার্বিক আলোচনায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিশু বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মোজাম্মেল হক জানান, বহির্বিভাগে এখন যে সংখ্যায় রোগী আসছে, মাস খানেক আগেও তা অর্ধেকের কম ছিল। সাধারণ জ্বর, মাথা ব্যথা ও ডায়রিয়া আক্রান্ত শিশুদের নিয়ে আসছেন অভিভাবকরা। এদের একটি বড় অংশের শরীরে ডেঙ্গুর জীবাণু পাওয়া যাচ্ছে। বাকিরা ভুগছে ইনফ্লুয়েঞ্জা কিংবা ঠান্ডার সমস্যায়। ডেঙ্গু নেগেটিভ আসলেও, রোগীকে রাখা হচ্ছে বিশেষ নজরে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. খান আবুল কালাম আজাদ জানিয়েছেন, রাজধানীর মুগদা, সোহরাওয়ার্দী সহ অন্য প্রায় সব হাসপাতালেই রোগী বেড়েছে। শিশু ও বয়স্কদের প্রতিরোধ ক্ষমতা তুলনামুলক কম হওয়ায়, ডেঙ্গুর এই সময়ে ভাইরাস জ্বর হলেও নির্দেশনা ছাড়া ওষুধ খাওয়া উচিত নয়।

গেল সপ্তাহে বহির্বিভাগের রোগীদের তথ্য বিশ্লেষণ করে বিএসএমএমইউ কর্তৃপক্ষ। এতে দেখা যায়, পরীক্ষায় শতকরা ২৫ থেকে ৩০ জনের ডেঙ্গু শনাক্ত হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

মৌসুমি জ্বরের ঝুঁকিতে শিশু ও বয়স্করা

আপডেট সময় : ০৯:২৩:৪২ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২৩

ডেঙ্গুর পাশাপাশি ইনফ্লুয়েঞ্জা সহ নানা জ্বরে আক্রান্ত হচ্ছে শিশু সহ প্রায় সব বয়সীরা। মৌসুমি জ্বরে আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর হাসপাতালগুলোতে রোগী এখন দ্বিগুণের বেশি।

চিকিৎসকরা বলছেন, ঋতু পরিবর্তনের এই সময়ে বেশি ঝুঁকিতে রয়েছে শিশু ও বয়স্করা।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের বহির্বিভাগে দেখা যায়, মেডিসিন, বক্ষব্যাধি সহ শিশু চিকিৎসার প্রায় সব বিভাগেই উপচে পড়া ভিড়। বেশ কিছুদিন ধরে এমনই চলছে।

হাসপাতালে রোগীদের নিয়ে সার্বিক আলোচনায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিশু বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মোজাম্মেল হক জানান, বহির্বিভাগে এখন যে সংখ্যায় রোগী আসছে, মাস খানেক আগেও তা অর্ধেকের কম ছিল। সাধারণ জ্বর, মাথা ব্যথা ও ডায়রিয়া আক্রান্ত শিশুদের নিয়ে আসছেন অভিভাবকরা। এদের একটি বড় অংশের শরীরে ডেঙ্গুর জীবাণু পাওয়া যাচ্ছে। বাকিরা ভুগছে ইনফ্লুয়েঞ্জা কিংবা ঠান্ডার সমস্যায়। ডেঙ্গু নেগেটিভ আসলেও, রোগীকে রাখা হচ্ছে বিশেষ নজরে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. খান আবুল কালাম আজাদ জানিয়েছেন, রাজধানীর মুগদা, সোহরাওয়ার্দী সহ অন্য প্রায় সব হাসপাতালেই রোগী বেড়েছে। শিশু ও বয়স্কদের প্রতিরোধ ক্ষমতা তুলনামুলক কম হওয়ায়, ডেঙ্গুর এই সময়ে ভাইরাস জ্বর হলেও নির্দেশনা ছাড়া ওষুধ খাওয়া উচিত নয়।

গেল সপ্তাহে বহির্বিভাগের রোগীদের তথ্য বিশ্লেষণ করে বিএসএমএমইউ কর্তৃপক্ষ। এতে দেখা যায়, পরীক্ষায় শতকরা ২৫ থেকে ৩০ জনের ডেঙ্গু শনাক্ত হয়।