০৫:৫২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইসরাইলে ভয়াবহ হামলার পর যা বললেন হামাস নেতা হানিয়া

ফিলিস্তিনের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাসের পলিটব্যুরো প্রধান ইসমাইল হানিয়া বলেছেন, তার সংগঠন ‘একটি বিশাল বিজয়ের দ্বারপ্রান্তে’ রয়েছে। অবৈধ দখলদার ইসরাইলে শনিবারের ভয়াবহ হামলার পর টেলিভিশনে সম্প্রচারিত এক ভাষণে হামাস নেতা ও সাবেক ফিলিস্তিনি প্রধানমন্ত্রী ইসমাইল হানিয়া এ প্রত্যয় জানান। খবর পার্সটুডে

তিনি বলেন, “আমরা গাজা ফ্রন্টে একটি বিশাল বিজয় এবং একটি সুস্পষ্ট বিজয়ের দ্বারপ্রান্তে রয়েছি।” ইসরাইল বিরোধী যুদ্ধকে ‘এই অবৈধ রাষ্ট্রের কেন্দ্রবিন্দুতে’ নিয়ে যাওয়া সম্ভব হয়েছে বলেও তিনি সন্তোষ প্রকাশ করেন।

হানিয়া বলেন, “যথেষ্ট হয়েছে। আমাদের [ফিলিস্তিনি] ভূমি মুক্ত করার পাশাপাশি দখলদারদের কারাগারে আটক আমাদের বন্দিদের মুক্ত করার লক্ষ্যে যে ইন্তিফাদা [গণঅভ্যুত্থান] ও বিপ্লব শুরু হয়েছিল তাকে পূর্ণতা দেয়ার সময় এসেছে।”

হামাসের শীর্ষ নেতা আরো বলেন, তার সংগঠন বহু আগে সতর্ক করে দিয়ে বলেছিল, গোটা বিশ্ব ইহুদিবাদীদের হাতে ফিলিস্তিনি জনগণের নিপীড়ন ও আল-আকসা মসজিদের অবমাননার ব্যাপারে নীরব থাকলেও হামাস তা সহ্য করবে না।

তিনি বলেন, হামাসের এই অভিযানে উদ্বুদ্ধ হয়ে অচিরেই পশ্চিম তীরসহ অন্যান্য স্থানের প্রতিরোধ সংগঠনগুলো জেগে উঠবে। তিনি সকল ফিলিস্তিনিকে এই যুদ্ধে অংশগ্রহণ করার আহ্বান জানিয়ে বলেন, এবার নিশ্চিত বিজয় হবে ফিলিস্তিনিদের।

যেসব আরব দেশ বিগত বছরগুলোতে ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন করেছে তাদেরকে সতর্ক করে দিয়ে ইসমাইল হানিয়া বলেন, ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করে এসব আরব সরকার নিজেদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারবে না। হানিয়ার ভাষায়, “আমরা আমাদের আরব ভাইদেরসহ বিশ্বের সকল দেশকে একথা বলতে চাই যে, যে অবৈধ রাষ্ট্র প্রতিরোধ যোদ্ধাদের মোকাবিলায় নিজেকে নিরাপত্তা দিতে পারে না, তার পক্ষে আপনাদেরকে রক্ষা করা কোনো অবস্থায় সম্ভব নয়।”

তিনি আরব দেশগুলোকে উদ্দেশ করে আরো বলেন, “আপনারা সম্পর্ক স্থাপনের লক্ষ্যে যেসব চুক্তি করেছেন তার মাধ্যমে ফিলিস্তিন-ইসরাইল সংঘাতের অবসান ঘটানো সম্ভব নয়।”

ইসরাইলে ভয়াবহ হামলার পর যা বললেন হামাস নেতা হানিয়া

আপডেট : ০৬:৩৮:২৮ পূর্বাহ্ন, রোববার, ৮ অক্টোবর ২০২৩

ফিলিস্তিনের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাসের পলিটব্যুরো প্রধান ইসমাইল হানিয়া বলেছেন, তার সংগঠন ‘একটি বিশাল বিজয়ের দ্বারপ্রান্তে’ রয়েছে। অবৈধ দখলদার ইসরাইলে শনিবারের ভয়াবহ হামলার পর টেলিভিশনে সম্প্রচারিত এক ভাষণে হামাস নেতা ও সাবেক ফিলিস্তিনি প্রধানমন্ত্রী ইসমাইল হানিয়া এ প্রত্যয় জানান। খবর পার্সটুডে

তিনি বলেন, “আমরা গাজা ফ্রন্টে একটি বিশাল বিজয় এবং একটি সুস্পষ্ট বিজয়ের দ্বারপ্রান্তে রয়েছি।” ইসরাইল বিরোধী যুদ্ধকে ‘এই অবৈধ রাষ্ট্রের কেন্দ্রবিন্দুতে’ নিয়ে যাওয়া সম্ভব হয়েছে বলেও তিনি সন্তোষ প্রকাশ করেন।

হানিয়া বলেন, “যথেষ্ট হয়েছে। আমাদের [ফিলিস্তিনি] ভূমি মুক্ত করার পাশাপাশি দখলদারদের কারাগারে আটক আমাদের বন্দিদের মুক্ত করার লক্ষ্যে যে ইন্তিফাদা [গণঅভ্যুত্থান] ও বিপ্লব শুরু হয়েছিল তাকে পূর্ণতা দেয়ার সময় এসেছে।”

হামাসের শীর্ষ নেতা আরো বলেন, তার সংগঠন বহু আগে সতর্ক করে দিয়ে বলেছিল, গোটা বিশ্ব ইহুদিবাদীদের হাতে ফিলিস্তিনি জনগণের নিপীড়ন ও আল-আকসা মসজিদের অবমাননার ব্যাপারে নীরব থাকলেও হামাস তা সহ্য করবে না।

তিনি বলেন, হামাসের এই অভিযানে উদ্বুদ্ধ হয়ে অচিরেই পশ্চিম তীরসহ অন্যান্য স্থানের প্রতিরোধ সংগঠনগুলো জেগে উঠবে। তিনি সকল ফিলিস্তিনিকে এই যুদ্ধে অংশগ্রহণ করার আহ্বান জানিয়ে বলেন, এবার নিশ্চিত বিজয় হবে ফিলিস্তিনিদের।

যেসব আরব দেশ বিগত বছরগুলোতে ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন করেছে তাদেরকে সতর্ক করে দিয়ে ইসমাইল হানিয়া বলেন, ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করে এসব আরব সরকার নিজেদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারবে না। হানিয়ার ভাষায়, “আমরা আমাদের আরব ভাইদেরসহ বিশ্বের সকল দেশকে একথা বলতে চাই যে, যে অবৈধ রাষ্ট্র প্রতিরোধ যোদ্ধাদের মোকাবিলায় নিজেকে নিরাপত্তা দিতে পারে না, তার পক্ষে আপনাদেরকে রক্ষা করা কোনো অবস্থায় সম্ভব নয়।”

তিনি আরব দেশগুলোকে উদ্দেশ করে আরো বলেন, “আপনারা সম্পর্ক স্থাপনের লক্ষ্যে যেসব চুক্তি করেছেন তার মাধ্যমে ফিলিস্তিন-ইসরাইল সংঘাতের অবসান ঘটানো সম্ভব নয়।”