০৪:৫৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিএনপি নেতাদের মন্তব্য প্রমাণ করে তারা আদালত মানেন না: তথ্যমন্ত্রী

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিএনপি নেতাদের মন্তব্য প্রমাণ করে তারা আদালত মানেন না। বুধবার (১১ অক্টোবর) সচিবালয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বাংলাদেশ সম্পাদক ফোরাম নেতৃবৃন্দের সাক্ষাৎ শেষে প্রশ্নোত্তরে তিনি এ কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ওয়ারেন্ট থাকলেও কাউকে গ্রেফতার করা যাবে না, এ কেমন কথা।

মন্ত্রী অভিযোগ করেন, নির্বাচন ও গণতন্ত্র নিয়ে ষড়যন্ত্র আছে। তাই গণমাধ্যম ও সরকারকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। গণমাধ্যম সঠিক ভূমিকা না রাখলে দেশ বিপদগ্রস্ত হবে বলেও মন্তব্য তার।

নির্বাচন নিয়ে ষড়যন্ত্র মোকাবিলায় গণমাধ্যমের কার্যকর ভূমিকা দরকার বলেও মনে করেন তিনি। বলেন, দেশ জাহান্নাম বানিয়েছেন- এটি বিচারিক ভাষা নয়। দশম ওয়েজবোর্ড নিয়ে কাজ শুরু হয়েছে। ভূইফোঁড় পত্রিকা বন্ধের কাজ চলমান আছে বলেও মন্তব্য করেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী।

বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি নিয়ে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) বিবৃতির বিষয়ে সরকারের এই মন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্বজুড়ে মন্দা চলছে। এ সময়ে আমাদের প্রবৃদ্ধির হার অন্যান্য দেশের চেয়ে অনেক ভালো। এখন প্রায় ষাট মিলিয়ন। তবে নিত্যপণ্যের ঊর্ধ্বগতি নিয়ে অনেক কথা হয়। পৃথিবীর সব দেশে নিত্যপণ্যের দাম বেড়েছে। যদিও এ কারণে সাধারণ মানুষের কষ্ট হচ্ছে। টিসিবিসহ বিভিন্নভাবে প্রণোদনা দিয়ে সরকার চেষ্টা করছে, এর ফলে বাংলাদেশে কোনো আহাজারি নেই। বাংলাদেশে নিত্যপণ্যের ঘাটতি হয়নি, ইউরোপ-আমেরিকায় হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, করোনা মহামারির সময় পৃথিবীর ২০টি দেশে ইতিবাচক প্রবৃদ্ধির হার হয়েছিল, তার মধ্যে বাংলাদেশ রয়েছে। আমাদের অবস্থান ছিল তিন নম্বরে। আমাদের অর্থনীতি অনেক ভালো। এখনও বিশ্বের গড় প্রবৃদ্ধির চেয়ে আমাদের দ্বিগুণেরও বেশি। এটি আইএমএফের প্রতিবেদন। এখন অপেক্ষায় আছি, এ প্রতিবেদনের ওপর বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর কী বলেন, সেটা শুনতে চাই।

বিএনপি নেতাদের মন্তব্য প্রমাণ করে তারা আদালত মানেন না: তথ্যমন্ত্রী

আপডেট : ১০:৫৮:২৭ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১১ অক্টোবর ২০২৩

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিএনপি নেতাদের মন্তব্য প্রমাণ করে তারা আদালত মানেন না। বুধবার (১১ অক্টোবর) সচিবালয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বাংলাদেশ সম্পাদক ফোরাম নেতৃবৃন্দের সাক্ষাৎ শেষে প্রশ্নোত্তরে তিনি এ কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ওয়ারেন্ট থাকলেও কাউকে গ্রেফতার করা যাবে না, এ কেমন কথা।

মন্ত্রী অভিযোগ করেন, নির্বাচন ও গণতন্ত্র নিয়ে ষড়যন্ত্র আছে। তাই গণমাধ্যম ও সরকারকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। গণমাধ্যম সঠিক ভূমিকা না রাখলে দেশ বিপদগ্রস্ত হবে বলেও মন্তব্য তার।

নির্বাচন নিয়ে ষড়যন্ত্র মোকাবিলায় গণমাধ্যমের কার্যকর ভূমিকা দরকার বলেও মনে করেন তিনি। বলেন, দেশ জাহান্নাম বানিয়েছেন- এটি বিচারিক ভাষা নয়। দশম ওয়েজবোর্ড নিয়ে কাজ শুরু হয়েছে। ভূইফোঁড় পত্রিকা বন্ধের কাজ চলমান আছে বলেও মন্তব্য করেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী।

বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি নিয়ে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) বিবৃতির বিষয়ে সরকারের এই মন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্বজুড়ে মন্দা চলছে। এ সময়ে আমাদের প্রবৃদ্ধির হার অন্যান্য দেশের চেয়ে অনেক ভালো। এখন প্রায় ষাট মিলিয়ন। তবে নিত্যপণ্যের ঊর্ধ্বগতি নিয়ে অনেক কথা হয়। পৃথিবীর সব দেশে নিত্যপণ্যের দাম বেড়েছে। যদিও এ কারণে সাধারণ মানুষের কষ্ট হচ্ছে। টিসিবিসহ বিভিন্নভাবে প্রণোদনা দিয়ে সরকার চেষ্টা করছে, এর ফলে বাংলাদেশে কোনো আহাজারি নেই। বাংলাদেশে নিত্যপণ্যের ঘাটতি হয়নি, ইউরোপ-আমেরিকায় হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, করোনা মহামারির সময় পৃথিবীর ২০টি দেশে ইতিবাচক প্রবৃদ্ধির হার হয়েছিল, তার মধ্যে বাংলাদেশ রয়েছে। আমাদের অবস্থান ছিল তিন নম্বরে। আমাদের অর্থনীতি অনেক ভালো। এখনও বিশ্বের গড় প্রবৃদ্ধির চেয়ে আমাদের দ্বিগুণেরও বেশি। এটি আইএমএফের প্রতিবেদন। এখন অপেক্ষায় আছি, এ প্রতিবেদনের ওপর বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর কী বলেন, সেটা শুনতে চাই।