১০:১৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

লক্ষ্য একটাই, দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, লক্ষ্য একটাই, দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করা। আজ মঙ্গলবার সকালে পূর্বাচল এক্সপ্রেসওয়ে, চট্টগ্রাম এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে, রামগড় স্থলবন্দরসহ ১০ হাজারের বেশি অবকাঠামোর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন ও উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ভার্চ্যুয়ালি যুক্ত হয়ে এ কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ভোটচুরি ও ডাকাতি বিএনপির আমলেই শুরু হয়েছে। আওয়ামী লীগ সরকার জনগণের ভোটের অধিকার নিশ্চিত করেছে।

মঙ্গলবার (১৪ নভেম্বর) সকালে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে দেশের ২৪টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের ১৫৭টি প্রকল্পের ১০ হাজার ৪১টি অবকাঠামোর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন ও উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এমন মন্তব্য করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকার পরিকল্পনামাফিক এগিয়েছে বলেই বিএনপির সময় দেশের শিক্ষার হার ৪৫ শতাংশ থাকলেও আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে তা ৭৬ শতাংশ ছাড়িয়েছে।

শেখ হাসিনা বলেন, দীর্ঘ দিন ক্ষমায় থাকার কারণে দেশে এত উন্নতি হয়েছে। ২০৪১ মধ্যে দেশকে স্মাট বাংলাদেশ গড়ে তোলাই আমাদের লক্ষ্য। তিনি বলেন, দেশে ভোট চুরির সংস্কৃতি শুরু করে জিয়াউর রহমান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ গণতান্ত্রিক ও নির্বাচনের দল। দেশের গণতন্ত্র সুসংহত করেছে আওয়ামী লীগ। নির্বাচন ছাড়া বা অন্য কোনো পদ্ধতিতে আওয়ামী লীগ দেশ পরিচালনার দায়িত্বে আসেনি।

তিনি আরও বলেন, জনগণের ভোটের অধিকার আমরাই নিশ্চিত করেছি। বিএনপির সময় সাক্ষরতার হার ছিল ৪৭ শতাংশ। আর আওয়ামী লীগ সরকার সেটি নিয়ে এসেছে ৭৬ শতাংশ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, উন্নয়ন প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন করতে গেলে সরকারের ধারাবাহিকতা প্রয়োজন। ২০১৪ সালে নির্বাচন বানচালের চেষ্টার মধ্যে আওয়ামী জনগণের ভোটে সরকার গঠন করে। মনুষ্যসৃষ্ট দুর্যোগ ও প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলা করে আমরা এগিয়ে চলেছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের লক্ষ্য স্মার্ট বাংলাদেশ। প্রযুক্তি শিক্ষার ওপর আমাদের সরকার জোর দিয়েছে।

আজ যে প্রকল্পগুলো উদ্বোধন করা হয়েছে সেগুলোর মোট ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ৯৭ হাজার ৪৭১ কোটি টাকা। এগুলোর মধ্যে ১৫টি প্রকল্প নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন সংস্থা বাস্তবায়ন করছে। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে চারটি প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী।

এ ছাড়া আরও চার প্রকল্পের অধীনে, সারা দেশে ২ হাজার ২৩টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য ভবন নির্মাণ করা হবে। মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অধীনে চারটি ডে কেয়ার সেন্টারেরও উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী।

আজ মানিকগঞ্জ ও নারায়ণগঞ্জে দুটি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রও খুলবেন প্রধানমন্ত্রী। এ ছাড়া বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অন্তত ১ হাজার ২৫৯টি ভবনও উদ্বোধন করা হবে আজ।

লক্ষ্য একটাই, দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন: প্রধানমন্ত্রী

আপডেট : ০৮:৩২:২০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৪ নভেম্বর ২০২৩

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, লক্ষ্য একটাই, দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করা। আজ মঙ্গলবার সকালে পূর্বাচল এক্সপ্রেসওয়ে, চট্টগ্রাম এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে, রামগড় স্থলবন্দরসহ ১০ হাজারের বেশি অবকাঠামোর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন ও উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ভার্চ্যুয়ালি যুক্ত হয়ে এ কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ভোটচুরি ও ডাকাতি বিএনপির আমলেই শুরু হয়েছে। আওয়ামী লীগ সরকার জনগণের ভোটের অধিকার নিশ্চিত করেছে।

মঙ্গলবার (১৪ নভেম্বর) সকালে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে দেশের ২৪টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের ১৫৭টি প্রকল্পের ১০ হাজার ৪১টি অবকাঠামোর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন ও উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এমন মন্তব্য করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকার পরিকল্পনামাফিক এগিয়েছে বলেই বিএনপির সময় দেশের শিক্ষার হার ৪৫ শতাংশ থাকলেও আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে তা ৭৬ শতাংশ ছাড়িয়েছে।

শেখ হাসিনা বলেন, দীর্ঘ দিন ক্ষমায় থাকার কারণে দেশে এত উন্নতি হয়েছে। ২০৪১ মধ্যে দেশকে স্মাট বাংলাদেশ গড়ে তোলাই আমাদের লক্ষ্য। তিনি বলেন, দেশে ভোট চুরির সংস্কৃতি শুরু করে জিয়াউর রহমান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ গণতান্ত্রিক ও নির্বাচনের দল। দেশের গণতন্ত্র সুসংহত করেছে আওয়ামী লীগ। নির্বাচন ছাড়া বা অন্য কোনো পদ্ধতিতে আওয়ামী লীগ দেশ পরিচালনার দায়িত্বে আসেনি।

তিনি আরও বলেন, জনগণের ভোটের অধিকার আমরাই নিশ্চিত করেছি। বিএনপির সময় সাক্ষরতার হার ছিল ৪৭ শতাংশ। আর আওয়ামী লীগ সরকার সেটি নিয়ে এসেছে ৭৬ শতাংশ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, উন্নয়ন প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন করতে গেলে সরকারের ধারাবাহিকতা প্রয়োজন। ২০১৪ সালে নির্বাচন বানচালের চেষ্টার মধ্যে আওয়ামী জনগণের ভোটে সরকার গঠন করে। মনুষ্যসৃষ্ট দুর্যোগ ও প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলা করে আমরা এগিয়ে চলেছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের লক্ষ্য স্মার্ট বাংলাদেশ। প্রযুক্তি শিক্ষার ওপর আমাদের সরকার জোর দিয়েছে।

আজ যে প্রকল্পগুলো উদ্বোধন করা হয়েছে সেগুলোর মোট ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ৯৭ হাজার ৪৭১ কোটি টাকা। এগুলোর মধ্যে ১৫টি প্রকল্প নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন সংস্থা বাস্তবায়ন করছে। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে চারটি প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী।

এ ছাড়া আরও চার প্রকল্পের অধীনে, সারা দেশে ২ হাজার ২৩টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য ভবন নির্মাণ করা হবে। মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অধীনে চারটি ডে কেয়ার সেন্টারেরও উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী।

আজ মানিকগঞ্জ ও নারায়ণগঞ্জে দুটি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রও খুলবেন প্রধানমন্ত্রী। এ ছাড়া বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অন্তত ১ হাজার ২৫৯টি ভবনও উদ্বোধন করা হবে আজ।