ঢাকা ০৯:০৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

টেকনাফ-সেন্টমার্টিন জাহাজ চলাচল বন্ধ

অনলাইন ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০৫:৩৩:০০ অপরাহ্ন, বুধবার, ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • / ৪০৭ বার পড়া হয়েছে
৭১ নিউজ বিডির সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

আগামী শনিবার থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত টেকনাফ থেকে সেন্টমার্টিনগামী সকল পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল বন্ধ থাকবে। টেকনাফের উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো. আদনান চৌধুরী আজ বুধবার রাতে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

আদনান চৌধুরী বলেন, মিয়ানমার পরিস্থিতির কারণে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আগামী শুক্রবার পর্যন্ত টেকনাফ থেকে পর্যটকবাহী জাহাজ চলবে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) থেকে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন রুটে কোন পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল করবে না।

তবে চট্টগ্রাম থেকে যে দুটি জাহাজ সরাসরি সেন্টমার্টিন আসে সেগুলো চলাচল স্বাভাবিক থাকবে বলেও জানান আদনান চৌধুরী।

গত ১৩ নভেম্বর থেকে উত্তর রাখাইন ও প্রতিবেশী দক্ষিণ চিন রাজ্যের পালেতওয়া শরে জান্তা বাহিনীর বিরুদ্ধে হামলা চালিয়ে আসছে আরাকান আর্মি। গোষ্ঠীটি বলছে, রাখাইনের রাজধানী সিত্তের কাছের পাউকতাও শহর এবং পুরো পালেতওয়াসহ অন্যান্য এলাকায় মিয়ানমারের জান্তা বাহিনীর অন্তত ১৭০টি অবস্থান দখল করেছে তারা।

সম্প্রতি মিয়ানমারের সামরিক জান্তার সঙ্গে বিদ্রোহীদের সংঘর্ষে বাংলাদেশ সীমান্তে উত্তেজনা তৈরি হয়েছে। দিনভর সংঘর্ষ আর ওপার থেকে ভেসে আসা তীব্র গোলা–বারুদের শব্দে আতঙ্ক কাটছে না মিয়ানমার সীমান্তে থাকা বাংলাদেশি জনপদগুলোতে। আরাকান আর্মির সঙ্গে চলমান সংঘাতে টিকতে না পেরে বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিচ্ছে মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিপির সদস্যরা।

এখন পর্যন্ত ৩২৭ জন মিয়ানমারের বিজিপি ও সেনা সদস্যসহ বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তারা বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছেন। বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) বলছে, তাঁদের নিরস্ত্রীকরণ করে নিরাপদ আশ্রয়ে নেওয়া হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

টেকনাফ-সেন্টমার্টিন জাহাজ চলাচল বন্ধ

আপডেট সময় : ০৫:৩৩:০০ অপরাহ্ন, বুধবার, ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

আগামী শনিবার থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত টেকনাফ থেকে সেন্টমার্টিনগামী সকল পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল বন্ধ থাকবে। টেকনাফের উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো. আদনান চৌধুরী আজ বুধবার রাতে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

আদনান চৌধুরী বলেন, মিয়ানমার পরিস্থিতির কারণে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আগামী শুক্রবার পর্যন্ত টেকনাফ থেকে পর্যটকবাহী জাহাজ চলবে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) থেকে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন রুটে কোন পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল করবে না।

তবে চট্টগ্রাম থেকে যে দুটি জাহাজ সরাসরি সেন্টমার্টিন আসে সেগুলো চলাচল স্বাভাবিক থাকবে বলেও জানান আদনান চৌধুরী।

গত ১৩ নভেম্বর থেকে উত্তর রাখাইন ও প্রতিবেশী দক্ষিণ চিন রাজ্যের পালেতওয়া শরে জান্তা বাহিনীর বিরুদ্ধে হামলা চালিয়ে আসছে আরাকান আর্মি। গোষ্ঠীটি বলছে, রাখাইনের রাজধানী সিত্তের কাছের পাউকতাও শহর এবং পুরো পালেতওয়াসহ অন্যান্য এলাকায় মিয়ানমারের জান্তা বাহিনীর অন্তত ১৭০টি অবস্থান দখল করেছে তারা।

সম্প্রতি মিয়ানমারের সামরিক জান্তার সঙ্গে বিদ্রোহীদের সংঘর্ষে বাংলাদেশ সীমান্তে উত্তেজনা তৈরি হয়েছে। দিনভর সংঘর্ষ আর ওপার থেকে ভেসে আসা তীব্র গোলা–বারুদের শব্দে আতঙ্ক কাটছে না মিয়ানমার সীমান্তে থাকা বাংলাদেশি জনপদগুলোতে। আরাকান আর্মির সঙ্গে চলমান সংঘাতে টিকতে না পেরে বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিচ্ছে মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিপির সদস্যরা।

এখন পর্যন্ত ৩২৭ জন মিয়ানমারের বিজিপি ও সেনা সদস্যসহ বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তারা বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছেন। বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) বলছে, তাঁদের নিরস্ত্রীকরণ করে নিরাপদ আশ্রয়ে নেওয়া হয়েছে।