ঢাকা ০৮:৩১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

আ.লীগ জনগণের কাঁধে চেপে বসেছে: জিএম কাদের

রংপুর প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ০৪:২৭:০৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ মে ২০২৪
  • / ৩৫০ বার পড়া হয়েছে
৭১ নিউজ বিডির সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

কিছু সরকারি কর্মচারী আর পেশাজীবীদের নিয়ে একটা সংঘবদ্ধ দল হয়েছে আওয়ামী লীগ। আগে তারা জনগণকে ধারণ করতো, এখন তারা জনগণের কাঁধে চেপে বসেছে। রাজনৈতিক দল হিসেবে আওয়ামী লীগ তার বৈশিষ্ট্য হারিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় নেতা গোলাম মোহাম্মদ (জিএম) কাদের। রোববার (১৯ মে) দুপুরে তিনদিনের রংপুর সফরে এসে সার্কিট হাউসে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ মন্তব্য করেন।

জিএম কাদের বলেন, আগে আওয়ামী লীগ একটা গাছের মতো ছিলো জনগন যেখানে বিশ্রাম নিতো। কিন্তু এখন সেটা পরগাছা হয়ে গেছে। তারা নানা কারণে দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে।

আওয়ামী লীগের সমালোচনা করে তিনি আরও বলেন, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে আমি রেসপেক্ট করি। তিনি অনেক কথাই বলেন। তারা এখন শক্তিশালী দল হয়েছে বলে শুনি। কিন্তু এটা দানবীয় শক্তি নাকি শুভ শক্তি। যদি দানবীয় শক্তি হয় তাহলে সে শক্তিতো আমরা পছন্দ করতে পারি না। কারণ এটা জনগণের কাছে অত্যাচার করার শক্তি।

দেশে রিজার্ভ কমে গেছে উল্লেখ করে জিএম কাদের বলেন, ভয়াবহ অর্থনৈতিক সংকটের মধ্যে দেশ চলছে। সামনের দিকে আরও বিপদজনক অবস্থার সৃষ্টি হতে পারে। আমরা জানি, স্বাভাবিকভাবে তিন মাসের আমদানি ব্যয়ের সমান রিজার্ভ থাকতে হয়। আমদানি ব্যয় আগের তুলনায় অনেক কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। ৭/৮ বিলিয়নের জায়গায় এখন ৪/৫ বিলিয়ন ডলার খরচ করা হচ্ছে। তারপরও ১৫ বিলিয়ন ডলার এখন আমাদের নেই। আমাদের এখন ১১ বিলিয়ন ডলার আছে কিনা সন্দেহ।

সত্যিকার অর্থে এগুলো আমাদের জন্য অশনি সংকেত। টাকা নড়বড়ে হয়ে গেছে ডলারের কাছে। ডলারের কাছে টাকার মান প্রতিদিনেই কমছে।

জিএম কাদের বলেন, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে মানুষের নাভিশ্বাস উঠেছে। মানুষ অসহনীয় পরিস্থিতি থেকে মুক্তি চায়। কিন্তু আমরা সামনে কোনো মুক্তি দেখতে পারছি না। আইএমএফ যে লোন দিচ্ছে তা সামান্য। বিদেশি বিনিয়োগ কমে গেছে। সামনে না খেয়ে থাকার মতো অবস্থা হতে পারে। সরকারকে এসবের জবাবদিহিতা করতে হবে। কিন্তু সরকার এসব গোপন করছে। তারা গ্যাস, বিদ্যুৎ খাতে লুটপাট করেছে। প্রচুর টাকা বিদেশে পাচার করেছে।

সরকার সংবিধান লঙ্ঘন করেছে জানিয়ে জিএম কাদের বলেন, সংবিধানে বলা হয়েছে, যেকোনো বৈদেশিক চুক্তি করা হলে তা রাষ্ট্রপতির মাধ্যমে সংসদে উপস্থাপন করতে হবে। কিন্তু তা করা হচ্ছে না। তারা সংবিধান মানছে না।

নিজ দল প্রসঙ্গে জিএম কাদের বলেন, আমরা জনগণের স্বার্থে রাজনীতি করি। জনগণের মনের কথা বলতে চাই। এটা জনগণের দল, জনগণের কল্যাণে সবসময় নিয়োজিত রেখেছি।

এসময় জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মোবাশ্বের হাসান, জেলা পুলিশ সুপার ফেরদৌস আলী চৌধুরীসহ জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আ.লীগ জনগণের কাঁধে চেপে বসেছে: জিএম কাদের

আপডেট সময় : ০৪:২৭:০৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ মে ২০২৪

কিছু সরকারি কর্মচারী আর পেশাজীবীদের নিয়ে একটা সংঘবদ্ধ দল হয়েছে আওয়ামী লীগ। আগে তারা জনগণকে ধারণ করতো, এখন তারা জনগণের কাঁধে চেপে বসেছে। রাজনৈতিক দল হিসেবে আওয়ামী লীগ তার বৈশিষ্ট্য হারিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় নেতা গোলাম মোহাম্মদ (জিএম) কাদের। রোববার (১৯ মে) দুপুরে তিনদিনের রংপুর সফরে এসে সার্কিট হাউসে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ মন্তব্য করেন।

জিএম কাদের বলেন, আগে আওয়ামী লীগ একটা গাছের মতো ছিলো জনগন যেখানে বিশ্রাম নিতো। কিন্তু এখন সেটা পরগাছা হয়ে গেছে। তারা নানা কারণে দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে।

আওয়ামী লীগের সমালোচনা করে তিনি আরও বলেন, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে আমি রেসপেক্ট করি। তিনি অনেক কথাই বলেন। তারা এখন শক্তিশালী দল হয়েছে বলে শুনি। কিন্তু এটা দানবীয় শক্তি নাকি শুভ শক্তি। যদি দানবীয় শক্তি হয় তাহলে সে শক্তিতো আমরা পছন্দ করতে পারি না। কারণ এটা জনগণের কাছে অত্যাচার করার শক্তি।

দেশে রিজার্ভ কমে গেছে উল্লেখ করে জিএম কাদের বলেন, ভয়াবহ অর্থনৈতিক সংকটের মধ্যে দেশ চলছে। সামনের দিকে আরও বিপদজনক অবস্থার সৃষ্টি হতে পারে। আমরা জানি, স্বাভাবিকভাবে তিন মাসের আমদানি ব্যয়ের সমান রিজার্ভ থাকতে হয়। আমদানি ব্যয় আগের তুলনায় অনেক কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। ৭/৮ বিলিয়নের জায়গায় এখন ৪/৫ বিলিয়ন ডলার খরচ করা হচ্ছে। তারপরও ১৫ বিলিয়ন ডলার এখন আমাদের নেই। আমাদের এখন ১১ বিলিয়ন ডলার আছে কিনা সন্দেহ।

সত্যিকার অর্থে এগুলো আমাদের জন্য অশনি সংকেত। টাকা নড়বড়ে হয়ে গেছে ডলারের কাছে। ডলারের কাছে টাকার মান প্রতিদিনেই কমছে।

জিএম কাদের বলেন, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে মানুষের নাভিশ্বাস উঠেছে। মানুষ অসহনীয় পরিস্থিতি থেকে মুক্তি চায়। কিন্তু আমরা সামনে কোনো মুক্তি দেখতে পারছি না। আইএমএফ যে লোন দিচ্ছে তা সামান্য। বিদেশি বিনিয়োগ কমে গেছে। সামনে না খেয়ে থাকার মতো অবস্থা হতে পারে। সরকারকে এসবের জবাবদিহিতা করতে হবে। কিন্তু সরকার এসব গোপন করছে। তারা গ্যাস, বিদ্যুৎ খাতে লুটপাট করেছে। প্রচুর টাকা বিদেশে পাচার করেছে।

সরকার সংবিধান লঙ্ঘন করেছে জানিয়ে জিএম কাদের বলেন, সংবিধানে বলা হয়েছে, যেকোনো বৈদেশিক চুক্তি করা হলে তা রাষ্ট্রপতির মাধ্যমে সংসদে উপস্থাপন করতে হবে। কিন্তু তা করা হচ্ছে না। তারা সংবিধান মানছে না।

নিজ দল প্রসঙ্গে জিএম কাদের বলেন, আমরা জনগণের স্বার্থে রাজনীতি করি। জনগণের মনের কথা বলতে চাই। এটা জনগণের দল, জনগণের কল্যাণে সবসময় নিয়োজিত রেখেছি।

এসময় জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মোবাশ্বের হাসান, জেলা পুলিশ সুপার ফেরদৌস আলী চৌধুরীসহ জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।